হযরত শায়েখ মুহাম্মদ আলী হাকীম তিরমিজি (রঃ) – পর্ব ২ | আমার কথা
×

 

 

হযরত শায়েখ মুহাম্মদ আলী হাকীম তিরমিজি (রঃ) – পর্ব ২

coSam ৯৩


হযরত শায়েখ মুহাম্মদ আলী হাকীম তিরমিজি (রঃ) – পর্ব ১ পড়তে এখানে ক্লিক করুন  

হযরত আবু বকর ওয়াররক (রঃ) বলেন, হযরত মুহাম্মদ আলী (রঃ) একবার তাঁর স্বহস্ত লিখিত একখানি গ্রস্থ তাঁর হাতে দিয়ে জাইহুন নদীতে ফেলে দিতে বললেন। হযরত আবু বকর (রঃ) বইখানির কিছু কিছু অংশ পড়ে দেখলেন, তাতে রয়েছে সমস্ত তত্ত্ব-ভেদের সারনির্যাস। কাজেই নদীতে না ফেলে বইখানি রেখে দিলেন নিজের বাড়ীতে। আর তাঁকে বললেন, বইখানি জাইহুন নডীতে ফেলে দেয়া হয়েছে। তিনি বললেন, কিছু দেখতে পেলে কি? ওয়াররাক (রঃ) বললেন না। তিনি বললেন, তা হলে তা নদীতে নিক্ষেপ করনি। এবার ওয়াররাক (রঃ)-এর অবাক হওয়ার পালা। তিনি আবার বললেন, যাও, কিতাবখানি নদীতে ফেলে এস।

এবার আর দ্বিধা না করে তিনি সেটি নদীতে ফেললেন। সঙ্গে সঙ্গে নদীর পানি দুভাগ হয়ে শেষ। আর মধ্যে বেরিয়ে এল একটি ঢাকনা খোলা সিন্দুক। আর নিক্ষিপ্ত বইখানি সিন্দুকের ভিতরে ঢোকার সাথে সাথে ঢাকনু বন্ধ হয়ে গেল। সিন্দুকও অদৃশ্য হল। নদীরও পূর্বাবস্থায় ফিরে গেল। চোখের সামনে এসব অলৌকিক কাণ্ড দেখে বিস্ময়-বিমূঢ় অবস্থায় ওয়াররাক (রঃ) হযরত মুহাম্মদ আলী (রঃ)-এর কাছে ফিরে এলেন। আর জানতে চাইলে এর ভেদ-রহস্য।

তিনি বললেন, ঐ বইয়ে তাসাউফ বিদ্যা সম্বন্ধে কিছু কথা লিখেছিলেন। কিন্তু তা এমনই তত্ত্বপূর্ণ যে, তার মর্মোদ্ধার করা সকলের পক্ষে সম্ভব নয়। হযরত খিজির (আঃ)-এর কাছে পৌঁছে দেয়ার জন্য মাছ ও পানিকে আদেশ দেন। সে জন্য তা নদীতে নিক্ষেপ করা হয়। পানি যথারীতি সে বই হযরত খিজির (আঃ)-এর কাছে পৌঁছে দেবে।

এক দরবেশ প্রায় হযরত মুহাম্মদ আলী (রঃ)-কে গালমন্দ দিতেন। কেবল হজ্জ থেকে ফিরে এসে দেখলেন, তাঁর কুটিরে একটি কুকুর ঠাই নিয়েছে। তার বাচ্চা হয়েছে। তিনি কুটির থেকে কুকুরটিকে সরিয়ে দেবার জন্য একবার করে তার মাথার কাছে দাঁড়ান, আবার সরে আসেন, এরকম করেন প্রায় সত্তর বার। উদ্দেশ্য, কোন রকম কষ্ট অনুভব না করে সেটি যেন ওখান থেকে সরে যায়।

আর ঐ রাতেই দরবেশের স্বপ্ন দেখে, রাসূলুল্লাহ (সাঃ) তাঁকে বলছেন, কুকুরের মতো নিকৃষ্ট একটি জীবকেও যে সামান্য কষ্ট দিতে যায় না, আপনি তাঁকে কিনা গালমন্দ করেন? যদি সৌভাগ্য অর্জন করতে চান তা হলে এখন থেকে তাঁর সেবায় লেগে যান।

হযরত খিজির (আঃ)-এর সাক্ষাৎ প্রাপ্তির কামনা তাঁর বহু দিনের ছিল। কিন্তু সে কামনা বুঝি পূরণ হবার নয়। অবশেষে একদিন তাঁর পরিচারিকা কি করে যেন এক পেয়ালা পানি তাঁর মাথায় ওপরে ঢেলে দেয়। কিন্তু তাতে তিনি এতটুকু রাগ বা বিরক্তি প্রকাশ করলেন না। আর তখনই তাঁর সামনে এসে দাঁড়ালেন হযরত খিজির (আঃ)। বললেন, আপনার সহিষ্ণুতার কারণে আল্লাহ আমাকে আপনার কাছে পাঠিয়ে দিয়েছেন।

সূত্রঃ তাযকিরাতুল আউলিয়া

হযরত শায়েখ মুহাম্মদ আলী হাকীম তিরমিজি (রঃ) – পর্ব ৩ পড়তে এখানে ক্লিক করুন  

পরবর্তী গল্প
হযরত শায়েখ মুহাম্মদ আলী হাকীম তিরমিজি (রঃ) – পর্ব ৩

পূর্ববর্তী গল্প
হযরত শায়েখ মুহাম্মদ আলী হাকীম তিরমিজি (রঃ) – পর্ব ১

ক্যাটেগরী