হযরত মুছা (আঃ) কে অলৌকিক ঘটনা প্রদর্শন-পর্ব ৩

হযরত মুছা (আঃ) কে অলৌকিক ঘটনা প্রদর্শন-পর্ব ২ পড়তে এখানে ক্লিক করুন

অতএব আমি আপনার জ্ঞান থেকে কিছু হাসিল করার জন্য আল্লাহ আপনার নিকট আমাকে প্রেরণ করেছেন। খেজের (আঃ) তখন বললেন, আল্লাহ যে জ্ঞান আমাকে  দিয়েছেন তা আপনাকে দেন নি। তবে আমার এই জ্ঞানের বিষয় অবগত করত হলে আপনার ধৈর্যে মানাবে না। আপনি আমার সাথে তর্ক-বিতর্ক আরম্ভ করে দিবেন। হযরত মুছা (আঃ) তখন বললেন, আমাকে আপনি ধৈর্যশীল হিসাবে পাবেন। আমি আপনার কোন কাজে বাধা ও প্রতিবাদ করব না। হযরত খেজের (আঃ) বললেন, কাজ আপনার বিরুদ্ধে গেলেও আপনি কোন প্রতিবাদ  করবেন না। যতক্ষণ আমি আপনাকে সবিস্তার ঘটনা না বলি ততক্ষন আপনাকে ধৈর্য্য ধারন করে থাকতে হবে। হযরত মুছা (আঃ) সকল কথায় সম্মত দিল। তারা উভয়ে পথ চলতে শুরু করে দিল। কিছু দূর গিয়ে তারা একটি নদী দেখতে পেলেন এবং সেখানে এক মাঝি নৌকায় লোকজন পারাপার করছে। তখন তারা উভয়ে নৌকায় উঠলেন। নদীর উপারে গিয়ে খেজের (আঃ) কুঠার  দিয়ে নৌকার তলার একটা তক্তা ভেঙ্গে দিলেন। তখন হযরত মুছা (আঃ) বললেন, এ কি করলেন! এক দরিদ্র ব্যক্তি মানুষকে নদী  পারাপার করে দু পয়সা রুজী করে জিবন-যাপন করছে আপনি  তার নৌকা ভেঙ্গে দিলেন।  তাহলে লোকটি কি করে খাবে। তখন খেজের (আঃ) বললেন, পূর্বে বলে ছিলাম আপনি আমার কাজে ধৈর্য্য ধারন করতে পারবে না। 

হযরত মুছা (আঃ) তখন বললেন আমার ভুল হয়ে গেছে। আমি আর কোন কাজে বাধা দেব না। এবার আমাকে ক্ষমা করুন। তারা পুনারায় সম্মুখ দিকে অগ্রসর হতে লাগলেন। কিছু দূর গিয়ে তারা  দেখলেন কয়েক টি ছেলে খেলাধুলা করছে। তখন খেজের (আঃ) তাদের মধ্যে একটি ছেলে কে হত্যা করে ফেলেছেন।  তখন হযরত মুছা (আঃ) বললেন, আপনি অন্যায় করছেন, এই নিস্পাপ ছেলেটিকে আপনি বিনা অপরাধে হত্যা করেছেন। তখন খেজের (আঃ) বলল, আমি পূর্বে আপনাকে বলেছিলাম আমার কাছে আপনি ধৈর্য্য ধারন করতে পারবেন না। এবারেরও হযরত  মুছা (আঃ) তার অনিচ্ছাকৃত ভুলের জন্য ক্ষমা চেয়ে নিলেন। পুনরায়   তারা পথ চলতে শুরু করল। দীর্ঘ এক দিন এক রাত পথ চলার পর  তারা এক পল্লিতে গিয়ে পৌঁছলেন।  সেখানে পৌঁছে তারা অনেক ক্লান্ত হয়ে পড়লেন এবং তাদের যথেষ্ট ক্ষুধাও পেল। তখন ওখানের কিছু সংখ্যক বাসিন্দার বাড়িতে গিয়ে খাবারের প্রার্থনা জানালেন।

কিন্তু সেখান কার লোকেরা তাদের কে খাবার দিতে রাজি হল না। অবশেষে তারা অন্য পথ এ রওয়ানা করলেন। কিছু দূর এগিয়ে যাওয়ার পর তারা দেখলেন একটি ভগ্ন দালান। তাতে কয়েক জন নাবালক ছেলে মেয়ে বাস করছে। তাদের সাথে একমাত্র তাদের বৃদ্ধ মাতা ছাড়া আর কেউ নেই। তারা যে দালানে থাকে তার প্রধান দালান টি ভেঙ্গে ভেঙ্গে নিচে পড়ে স্তূপ হয়ে গেছে এবং বাকি অংশ ভাঙ্গনের মুখে। তখন খেজের (আঃ) দালানের কাছে এসে ইটগুলো এক পাশে রাখলেন। অতপর উহা দ্বারা দেয়ালটির সংস্কারের কাজ শুরু করে দিলেন। এক দিন রাত কাজ করে তারা দেয়ালটির নির্মান কাজ সমাধা করলেন। তখন হযরত মুছা (আঃ) বললেন, এটা আপনি কি কাজ করছেন। যাদের কাছে আমরা সামান্য খাবার পেলাম না। তাদের ভগ্ন দেয়াল সংস্কারের কাজে আপনি আত্ননিয়োগ করলেন। এ দ্বারা আমাদের কি উপকার সাধিত হবে? খেজের (আঃ) তখন বললেন, আপনার কথা রক্ষা করতে আপনি  ব্যর্থ হয়েছেন। ধৈর্যের আদৌ কোন পরিচয় দিতে সমর্থ হন নি। অতএব আপনাকে নিয়ে পথ চলা আমার পক্ষে সম্ভব নয়। সূত্রঃ কুরআনের শ্রেষ্ঠ কাহিনী      

হযরত মুছা (আঃ) কে অলৌকিক ঘটনা প্রদর্শন-পর্ব ৪ পড়তে এখানে ক্লিক করুন   

আরো পড়তে পারেন

দুঃখিত, কপি করবেন না।