হযরত তোফায়েল ইবনে আমর দাওসী (রাঃ ) কর্তৃক আপন কওমকে দাওয়াত প্রদান - পর্ব ৩ | আমার কথা
×

 

 

হযরত তোফায়েল ইবনে আমর দাওসী (রাঃ ) কর্তৃক আপন কওমকে দাওয়াত প্রদান - পর্ব ৩

coSam ৩৬৬


হযরত তোফায়েল ইবনে আমর দাওসী (রাঃ ) কর্তৃক আপন কওমকে দাওয়াত প্রদান - পর্ব ২ পড়তে এখানে ক্লিক করুন

আমার পিতা বলিলেন, তোমার দ্বীনই আমার দ্বীন। অতঃপর তিনি গোসল করিলেন এবং কাপড় পাক করিয়া আসিলেন। আমি তাহার সম্মুখে ইসলাম পেশ করিলাম। তিনি মুসলমান হইয়া গেলেন। তারপর আমার স্ত্রী আসিল। আমি বলিলাম, আমার নিকট হইতে দূরে থাক, তোমার সহিত আমার এবং আমার সহিত তোমার কোন সম্পর্ক নাই। স্ত্রী বলিল, কেন? আমার পিতামাতা আপনার জন্য কোরবান হউক। আমি বলিলাম, ইসলাম আমাদের উভয়ের সম্পর্ককে ছিন্ন করিয়া দিয়াছে। অতএব সেও ইসলাম গ্রহণ করিল। অতঃপর আমি দাওস গোত্রকে ইসলামের দাওয়াত দিলাম; কিন্তু তাহারা ইসলাম গ্রহণ করিতে (অনিচ্ছা প্রকাশ করিতে থাকিল এবং) অনেক দেরী করিয়া ফেলিল। অবশেষে আমি মক্কায় আসিয়া রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের খেদমতে আরজ করিলাম, হে আল্লাহ্‌র নবী, আমি দাওস গোত্রের নিকট পরাস্ত হইয়াছি (অর্থাৎ তাহাদিগকে দাওয়াত দিয়া ব্যর্থ হইয়াছি।) আপনি তাহাদের জন্য বদদোয়া করুন। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলিলেন, আয় আল্লাহ্‌, দোওস গোত্রকে হেদায়াত দান করুন। (তারপর আমাকে বলিলেন,) তোমার গোত্রের নিকট ফিরিয়া যাও এবং দাওয়াত দিতে থাক, তবে তাহাদের সহিত নম্র ব্যবহার করিবে।

হযরত তোফায়েল (রাঃ) বলেন, আমি ফিরিয়া আসিলাম এবং দাওসের এলাকায় তাহাদিগকে ইসলামের প্রতি দাওয়াত দিতে থাকিলাম। এদিকে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম মদীনায় হিজরত করিলেন এবং বদর, ওহুদ ও খন্দকের যুদ্ধ শেষ করিলেন।তারপর আমি আমার স্বগোত্রীয় মুসলমানদের সঙ্গে লইয়া রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের খেদমতে হাজির হইলাম। তিনি তখন খায়বারে গমন করিয়াছিলেন। সে সময় আমি দাওস গোত্রের প্রায় সত্তর-আশি পরিবার মদীনায় লইয়া আসিয়াছিলাম। (আবু নুআঈম)

অপর এক রেওয়ায়াতে হযরত ইবনে আব্বাস (রাঃ) হযরত তোফায়েল ইবনে আমর (রাঃ) এর ইসলাম গ্রহণ তাহার পিতা, স্ত্রী ও কওমকে দাওয়াত প্রদান এবং তাহার মক্কা আগমনের ঘটনা উল্লেখ করিয়া অতিরিক্ত ইহাও বর্ণনা করিয়াছেন যে, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তাহাকে যুল কাফফাইন নামক মূর্তি জ্বালাইয়া দিবার জন্য প্রেরণ করিয়াছিলেন। অতঃপর তাহার ইয়ামামা গমন ও (হযরত আবু বকর (রাঃ) এর যুগে) তাহার একটি স্বপ্ন দেখা এবং ইয়ামামার যুদ্ধে তাহার শাহাদাত বরণের কথাও উল্লেখ করিয়াছেন।

এসাবাহ নামক গ্রন্থে আবুল ফারাজ ইস্পাহানীর বরাত দিয়া ইবনে কালবী হইতে বর্ণনা করা হইয়াছে যে, হযরত তোফায়েল (রাঃ) মক্কায় আসিলে কোরাইশের কতিপয় লোক আসিয়া রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের দাওয়াত সম্পর্কে তাহাকে অবহিত করিল এবং তাহার অবস্থা সম্পর্কে তাহাকেও যাচাই করিবার জন্য অনুরোধ করিল। অতএব তিনি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের নিকট যাইয়া নিজের রচিত কবিতা পড়িয়া শুনাইলেন। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তাহাকে সূরায়ে এখলাস, ফালাক ও সূরায়ে নাস পড়িয়া শুনাইলেন। হযরত তোফায়েল (রাঃ) সঙ্গে সঙ্গে ইসলাম গ্রহণ করিলেন এবং নিজ কওমের নিকট ফিরিয়া আসিলেন। অতঃপর এই রেওয়ায়াতে তাহার চাবুকের মাথায় নূর প্রকাশিত হইবার কথাও উল্লেখ করা হইয়াছে। ইহাও বলা হইয়াছে যে, তিনি আপন পিতামাতাকে ইসলামের দাওয়াত দিলে পিতা ইসলাম গ্রহণ করিলেন, কিন্তু মা গ্রহণ করিলেন না।

সূত্রঃ হায়াতুস সাহাবা

হযরত তোফায়েল ইবনে আমর দাওসী (রাঃ ) কর্তৃক আপন কওমকে দাওয়াত প্রদান - শেষ পর্ব পড়তে এখানে ক্লিক করুন

পরবর্তী গল্প
হযরত তোফায়েল ইবনে আমর দাওসী (রাঃ ) কর্তৃক আপন কওমকে দাওয়াত প্রদান - শেষ পর্ব

পূর্ববর্তী গল্প
হযরত তোফায়েল ইবনে আমর দাওসী (রাঃ ) কর্তৃক আপন কওমকে দাওয়াত প্রদান - পর্ব ২

ক্যাটেগরী