হযরত ওয়ায়েস কারনী (রঃ)-পর্ব ৭ | আমার কথা
×

 

 

হযরত ওয়ায়েস কারনী (রঃ)-পর্ব ৭

coSam ১৫১


হযরত ওয়ায়েস কারনী (রঃ)-পর্ব ৬ষ্ঠ পর্ব পড়তে এখানে ক্লিক করুন

আয়াতটি পাঠ করেই তিনি জোরেশোরে চিৎকার করে উঠলেন। মনে হল, তিনি বুঝি জ্ঞান হারিয়ে ফেলেছেন। কিন্তু না, ইবনে জামানের উদ্দেশ্যে বললেন, বলুন, আপনি কি উদ্দেশ্যে এখানে এসেছেন? ইবনে জামান বললেন, আপনার প্রতি আমার ভক্তি ও ভালোবাসাই আমাকে টেনে এনেছে।

যিনি আল্লাহকে চিনেছেন তিনি আল্লাহ ছাড়া অন্য কারও সাথে ভালোবাসা করে শান্তি পেয়েছেন বলে আমার জানা নেই। জেনে রাখুন, আল্লাহ ছাড়া অন্য কারও সঙ্গে বন্ধুত্ব স্থাপন করে কেউ কোনদিন সুখী হতে পারে না।

এ ধরনের কথাবার্তার পরে ইবনে জামান আবার অনুরোধ করলেন, দয়া করে আমাকে কিছু উপদেশ দিন।

ওয়ায়েস (রঃ) এ অনুরোধ রক্ষা করলেন। বললেন, যখন ঘুমিয়ে যাবেন, তখন মনে করবেন মৃত্যু আপনার শিয়রে। আর যখন জেগে থাকবেন, তখন জানবেন মৃত্যু রয়েছে চোখের সামনে। কোন পাপকে ছোট মনে করবেন না। কেননা, পাপকে ছোট মনে করাও পাপ?

ইবনে জামানের পরবর্তী প্রশ্নঃ আমি এখন কোথায় বসবাস করবো জনাব?

আপনি সিরিয়া চলে যান।

অপরিচিত দেশে আমার গ্রাসাচ্ছাদন কিভাবে চলবে?

যার মনে এত চিন্তা-ভাবনা, উপদেশে তার কোন কাজ হবে না।

দয়া করে আরও কিছু বলুন।

আপনার পিতার মৃত্যু হয়েছে। হযরত আদম, নুহ, মুসা, ঈসা, এমনকি শেষ নবী মুহাম্মদ মুস্তফা (সাঃ)-ও ইন্তেকাল করেছেন। তাই ওমরও মৃত্যুপথের পথিক। কথাটা বলেই তিনি হায় ওমর! হায়, ওমর! বলে কাঁদতে লাগলেন।

ইবনে জামান কেমন যেন দিশেহারা হয়ে বললেন, আল্লাহ আপনার ভালো করুন। কিন্তু জনাব, হযরত ওমর (রঃ) তো মৃত্যুবরণ করেননি।

হযরত ওয়ায়েস (রঃ) বললেন, আল্লাহ আমাকে তাঁর মৃত্যুর খবর জানিয়ে দিয়েছেন। পরে বললেন, আসলে আপনি আমি আমরা সবাই মৃতদেরই দলভুক্ত।

সূত্রঃ তাযকিরাতুল আউলিয়া

হযরত ওয়ায়েস কারনী (রঃ)-পর্ব ৮ম পর্ব পড়তে এখানে ক্লিক করুন

পরবর্তী গল্প
হযরত ওয়ায়েস কারনী (রঃ)-পর্ব ৮

পূর্ববর্তী গল্প
হযরত ওয়ায়েস কারনী (রঃ)-পর্ব ৬

ক্যাটেগরী