হযরত আবু হাফস হাদ্দাদ খোরাসানী (রঃ) – পর্ব ৪ | আমার কথা
×

 

 

হযরত আবু হাফস হাদ্দাদ খোরাসানী (রঃ) – পর্ব ৪

coSam ১১৯


হযরত আবু হাফস হাদ্দাদ খোরাসানী (রঃ) – পর্ব ৩   পড়তে এখানে ক্লিক করুন   

এবার মুখ খুললেন হযরত হাফস (রঃ) হযরত জুনায়েদ (রঃ)-এর বিশ্লেষণ যে যথার্থ, তা স্বীকার করে তিনি বললেন, তাঁর মতে আসলে বীরত্ব হল এই যে, কোন লোক অন্যের প্রতি সুবিচার করে, কিন্তু বিনিময়ে অন্যের কাছে তা প্রার্থনা করে না।

হযরত হাফস (রঃ)-এর এই অপূর্ব ব্যাখ্যায় হযরত জুনায়েদ (রঃ) খুব বেশী খুশী উপস্থিত লোকদের বললেন, তোমরা এটি মনে রেখে আমল করো। আর জেনে রেখো, হযরত আবু হাফস (রঃ) বনী আদমকূলের মধ্যে বীরত্ব সেরা। তিনি বীরত্ব প্রসঙ্গে যা বললেন, তা যদি প্রকৃত হয় তাহলে আমি এখনও বীরত্বের সন্ধান পাইনি।

হযরত (রঃ)-এর শিষ্যগণ তাঁকে যেমন ভক্তি করতেন, তেমনি ভয়ও করতেন। চোখ তুলে তাঁর দিকে তাকিয়ে কথা বলার কারোর সাহস হত না। তাঁরা দরবারে দাঁড়িয়ে থাকতেন হাত জোড় করে, মাথা নিচু অবস্থায়। বসার ইশারা পেলে তবেই বসতেন। যেন এক সম্রাট বসে আছেন দরবারের রকম ছিল তাঁর দরবারী ব্যক্তিত্ব। এই দৃশ্য দেখে হযরত জুনায়েদ (রঃ) একদিন বললেন, আপনি কি আপনার শিষ্যদের রাজসভায় বসিয়ে রাজনীতি শিক্ষা দিচ্ছেন?

তিনি বললেন, হযরত হাফস (রঃ) হযরত জুনায়েদ (রঃ)-কে এক ডেকচি শাহী পায়েস ও হালুয়া তৈরি করতে বললেন। পায়েস ও হালুয়া তৈরি হলে তিনি বললেন, একটি লোকের মাথায় তুলে দিয়ে তাকে যথাসাধ্য দ্রুত হাঁটতে বলুন। তারপর ডেকচি বয়ে নিয়ে যেতে যেতে সে যেখানে ক্লান্ত হয়ে পড়বে, তার সবচেয়ে কাছের বাড়ীর লোককে ডেকে তা দিয়ে দিতে হবে। তাই করা হয়। পায়েস ও হালুয়ার ডেকচি মাথায় নিয়ে একটি লোক যত দ্রুত সম্ভব চলতে লাগল। তার সঙ্গে গেল আর একটি লোক। তার কাজ হল হাফসের (রঃ) নির্দেশমত তাদের যথাযথ উপদেশ দেওয়া।

ডেকচি-বাহক সত্যিই একখানি বাড়ীর কাছে ডেকচি নামিয়ে বিশ্রাম নিতে বসল। আর তার সাথের লোকটি গেল সবচেয়ে নিকটবর্তী বাড়ীর লোকজনকে ডাকতে। বাড়ীর ভেতর থেকে বেরিয়ে এলেন এক বৃদ্ধ। বললেন, তুমি যদি পায়েস আর হালুয়া দুটোই এনে থাক,  তাহলে বল ঘর থেকে বের হয়ে আসি। তা না হলে এসে কোন লাভ নেই।

সাথী লোকটি তো রীতিমত অবাক! পায়েস ও হালুয়ার খবর ইনি জানলেন কী করে? তার কৌতূহলের উত্তরে বৃদ্ধ বললেন, আমার ছেলেটি অনেকদিন থেকে পায়েস আর হালুয়া খেতে চাইছে। গতকাল মোনাজাতের সময় কথাটি আমার ইচ্ছা হলে তা আপনিই চলে আসবে। এখন তোমার ডাক শুনেই মনে হল, আল্লাহ নিশ্চয় আমার জন্য তা পাঠিয়ে দিয়েছেন।

বৃদ্ধের বিবরণ শুনে আর দ্বিরুক্তি না করে তখনই পায়েস ও হালুয়া বৃদ্ধে বাড়িতে পৌঁছে দেওয়া হল।

সূত্রঃ তাযকিরাতুল আউলিয়া

হযরত আবু হাফস হাদ্দাদ খোরাসানী (রঃ) – পর্ব ৫  পড়তে এখানে ক্লিক করুন   

পরবর্তী গল্প
হযরত আবু হাফস হাদ্দাদ খোরাসানী (রঃ) – পর্ব ৫

পূর্ববর্তী গল্প
হযরত আবু হাফস হাদ্দাদ খোরাসানী (রঃ) – পর্ব ৩

ক্যাটেগরী