শ্রমলব্ধ আয়ে জীবনযাপন ও আহার | আমার কথা
×

 

 

শ্রমলব্ধ আয়ে জীবনযাপন ও আহার

coSam ৩৩


হযরত সালমান ফারসী (রাঃ) হযরত হুজায়ফা ইবনে ইয়ামানের পর খলিফা উমার (রাঃ) এর আমলে নিযুক্ত হন মাদাইনের গভর্ণর বা আমীর। তার বেতন ছিল বার্ষিক ৫(পাঁচ) হাজার দিরহাম। সম্পূর্ণটাই তিনি সাদাকা হিসেবে বিতরণ করে দিতেন। নিজের হাতে কাজ করে তিনি যা অর্জন করতেন- তা দিয়ে তার জীবন চলে যেত।

আরব থেকে একটি জামায়াত মাদাইনে এসেছিলেন। তারা মাদাইনে সালমান ফারসীর সাথে দেখা করতে চাইলেন।

তাকে পাওয়া গেল একটি খেজুর ফল বিতানে। তিনি সেখানে বসে খড়ের ঠোঙ্গাঁ তৈরী  করছিলেন। তারা তার কাজ দেখে বিস্মিত হলেন।

একজন বনলেন, আপনি আমীর। আপনার বেতন নিশ্চিত আর আপনি এ কাজ করছেন? সালমান ফারসী (রাঃ) জবাব দিলেন - আমি নিজের হাতে অর্জিত আয় থেকে জীবনযাপন পছন্দ করি।

আহার সালমান ফারসী (রাঃ) এক দিন দাওয়াত খেতে গিয়েছিলেন। যে খাবার তাকে দেওয়া হয়েছিল তা থেকে তিনি অল্প আহার করলেন।

আর একটু তাকে খেতে চাপাচাপি করছিল নিমন্ত্রণকারী মেজবান। সালমান ফারসী (রাঃ) বললেন,যা খেয়েছি তাই আমার জন্য যথেষ্ট। আমার জন্য কাফি।

আমি আল্লাহর রাসূল (সাঃ) কে বলতে শুনেছি। তিনি বলেছেন- যে দুনিয়ায় তার পেট পূর্ণ করে- পরকালে সে অত্যন্ত ক্ষুধার্ত থাকবে।

হে সালমান! ঈমানদারদের জন্য এই দুনিয়া একটি কারাগার এবং কাফেরের জন্য দুনিয়া হল জান্নাত।

সুত্রঃ ক্রিতদাস থেকে সাহাবী

পরবর্তী গল্প
মধ্যমপন্থা

পূর্ববর্তী গল্প
সরল জীবন যাত্রা

ক্যাটেগরী