শিয়ালের শিক্ষা | আমার কথা
×

 

 

শিয়ালের শিক্ষা

coSam ৫৭৬


একদিন পশুর রাজা সিংহ শিয়াল আর এক গাধাকে সঙ্গে করে শিকারে বের হল। চলতে চলতে সিংহ সঙ্গীদের বলল- আজ শিকারে যা পাব, তিনজনেই তা সমানভাবে চাগ করে খাব। শিয়াল আর গাধা সিংহের কথায় সায় দিয়ে বলল আপনি যা করবেন, তা-ই হবে।

জঙ্গলের ভেতর কিছুক্ষণ ঘুরাফেরা করার পর শিকার মিলে গেল। বেশ বড় হরিণ। তিনজনে মিলে হরিণটাকে মারল।

সিংহ গাধাকে বলল, গর্দভ ! হরিণটাকে তুমিই আমাদের মধ্যে ভাগ করে দাও। গাধা অনেকক্ষণ সময় ব্যয় করে হরিণটাকে সমান তিন ভাগে ভাগ করল। তারপর বলল- ভাগ একেবারে সমান সমান হয়েছে মহারাজ। যার যে ভাগ খুশী নিয়েই হল।  

গাধার কথা শুনে সিংহ খুব রেগে গেল। সে হুংকার ছেড়ে এক লাফে গাধার ঘাড়ে ঝাঁপিয়ে পড়ল। তার বিশাল থাবার এক চাপড়েই গাধা মারা গেল।

রাগ কিছুটা ঠান্ডা হয়ে এলে সিংহ সঙ্গী শিয়ালের দিকে তাকাল। বলল- গন্ডিত!   ভাগটা এবার তুমিই করে ফেল। তুমি বুদ্ধিমান, তোমার ভুল হবার কথা নয়।

শিয়াল দুরু দুরু বুকে একপাশে বসে সিংহের কান্ড দেখছিল। সে বুঝতে পেরে ভাবল, গোশত ভাগ করার ব্যাপারটা সিংহের একটা ছল মাত্র। সিংহ সমান ভাগের কথা বলছে বটে, কিন্তু নিজের ভাগ অপছন্দ হলে এই কথা তার মনে থাকবে না। তার তুলনায় সিংহের গায়ে জোরও বেশী। তাই সে যা করবে, তা-ই মেনে নিতে হবে।

চোখের সামনে গাধাকে মরতে মরতে দেখে শিয়াল হুশিয়ার হয়ে গেল। সে সিংহের ভাগে সবটুকু গোশত সাজিয়ে দিল আর সামান্য এক টুকরো মাত্র নিজের জন্য রাখল। সিংহ এবার বেজায় খুশী। মুখে আর হাসি ধরেনা। শিয়ালের দিকে তাকিয়ে বলল, শিয়াল ! তোমার পন্ডিত নাম তো সার্থক। বুদ্ধিতে  তোমার ভুল হয় না। তুমি যেভাবে গোশত ভাগ করে দিয়েছ, এমনটি আর কেউ পথ পারত না। এসো এবার হাত লাগানো যাক। শিয়াল বলল, মহারাজ ! গাধার পরিণতি দেখেই তো আমি শিখলাম।


পরবর্তী গল্প
ন্যায় বিচার

পূর্ববর্তী গল্প
অপরূপ ব্যাখ্যা

ক্যাটেগরী