মুসলিম ইবনে হারেস (রাঃ ) এর দাওয়াত | আমার কথা
×

 

 

মুসলিম ইবনে হারেস (রাঃ ) এর দাওয়াত

coSam ৮৬


মুসলিম ইবনে হারেস ইবনে মুসলিম তামীমী (রঃ) বলেন, আমার পিতা (হযরত হারেস (রাঃ)) বর্ণনা করিয়াছেন যে, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আমাদের এক জামাত প্রেরণ করিলেন। আমরা যখন আক্রমনস্থলের নিকতবর্তী হইলাম তখন আমি আমার ঘোড়া দ্রুত ছূটাইয়া সঙ্গীদের আগে চলিয়া গেলাম। এলাকার লোকজন এলাকা হইতে বাহির হইয়া আসিয়া কাদিতে লাগিল। আমি তাহাদিগকে বলিলাম, তোমরা লা-ইলাহা ইল্লাল্লাহ পড় নিরাপদ হইয়া যাইবে।

তাহারা কলেমা পড়িল, ইতিমধ্যে আমার সঙ্গীগণ আসিয়া পৌছিল এবং তাহারা (এই কৌশলের কথা জানিতে পারিয়া) আমাকে তিরষ্কার করিতে লাগিল। তাহারা বলিল, আপনি আমাদিগকে হাতে পাওয়া গনীমতের মাল হইতে বঞ্চিত করিয়াছেন। তারপর আমরা (মদীনায়) ফিরিয়া আসিলে আমার সঙ্গীগণ রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের নিকট এই ঘটনা ব্যক্ত করিল। তিনি আমাকে ডাকিলেন এবং আমার উক্ত কাজের প্রশংসা করিয়া বলিলেন, আল্লাহ্‌ তায়ালা তাহাদের প্রত্যেক ব্যক্তির বিনিময়ে তোমার জন্য এত এত সওয়াব লিখিয়া দিয়াছেন।

বর্ণনাকারী আবদুর রহমান বলেন, আমি সেই সওয়াবের সংখ্যা ভুলিয়া গিয়াছি। অতঃপর রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলিলেন, আমি তোমাকে একটি পরওয়ানা লিখিয়া দিতেছি এবং আমার পরে যাহারা মুসলমানদের ইমাম হইবেন তাহাদিগকে তোমার সম্পর্কে অসিয়ত লিখিয়া দিতেছি। অতএব তিনি পরওয়ানা লিখিলেন এবং উহাতে সীলমোহর লাগাইয়া আমাকে দিলেন। তারপর বলিলেন, ফজরের নামায শেষে কাহারো সহিত কথা বলিবার পূর্বে তুমি সাতবার এই দোয়া পড়িও–

اللهم اجرني من النار

অর্থঃ আয় আল্লাহ্‌, আমাকে দোযখের আগুন হইতে রক্ষা করুন।

যদি সেইদিন তোমার মৃত্যু হয় তবে আল্লাহ্‌ তায়ালা তোমাকে দোযখের আগুন হইতে মুক্ত বলিয়া লিখিয়া দিবেন। এমনিভাবে মাগরিবে নামায শেষে কাহারো সহিত কথা বলিবার পূর্বে তুমি সাতবার–

اللهم اجرني من النار

পড়িবে। যদি সেই রাত্রে তোমার মৃত্যু হয় তবে আল্লাহ্‌ তায়ালা তোমাকে দোযখের আগুন হইতে মুক্ত বলিয়া লিখিয়া দিবেন।

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের ইন্তেকালের পর আমি সেই অসিয়তনামা লইয়া হযরত আবু বকর (রাঃ) এর নিকট আসিলাম। তিনি সীলমোহর ভাঙ্গিয়া উহা পড়িলেন এবং (রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের অসিয়ত অনুযায়ী) আমাকে (মালামাল) প্রদানের হুকুম দিলেন। তারপর পুনরায় তিনি উক্ত অসিয়ত নামার উপর সীলমোহর লাগাইয়া দিলেন। অতঃপর আমি উহা লইয়া হযরত ওমর (রাঃ) এর (যুগে তাহার) নিকট আসিলে তিনি ঐরূপ করিলেন। অতঃপর আমি হযরত ওসমান (রাঃ) এর যুগে তাহার নিকট আসিলে তিনি একইরূপ করিলেন।

মুসলিম ইবনে হারেস বলেন, হযরত ওসমান (রাঃ) এর খেলাফত আমলে হযরত হারেস (রাঃ) এর ইন্তেকাল হইলে সেই অসিয়তনামা আমাদের নিকট রক্ষিত ছিল। হযরত ওমর ইবনে আবদুল আযীম (রঃ) খলীফা হইবার পর তিনি আমাদের এলাকার গভর্নেরর নিকট এই মর্মে নির্দেশ পাঠাইলেন যে, মুসলিম ইবনে হারেস ইবনে মুসলিম তামীমীকে তাহার পিতার জন্য লিখিয়া দেওয়া রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের সেই অসিয়তনামা সহ আমার নিকট পাঠাও। অতএব সেই অসিয়তনামা সহ আমি তাহার নিকট গেলাম। তিনি উহা পড়িলেন এবং (অসিয়ত অনুযায়ী মালামাল প্রদান করিয়া) পুনরায় উহাতে মোহর লাগাইয়া বন্ধ করিয়া দিলেন। (কানযুল উম্মাল)

সূত্রঃ হায়াতুস সাহাবা

পরবর্তী গল্প
যিয়াদ ইবনে হারেস (রাঃ) এর নিজ কওমের প্রতি পত্র – পর্ব ১

পূর্ববর্তী গল্প
হযরত তোফায়েল ইবনে আমর দাওসী (রাঃ ) কর্তৃক আপন কওমকে দাওয়াত প্রদান - শেষ পর্ব

ক্যাটেগরী