মায়ের কোলে মূসা (আঃ) – পর্ব ২

মায়ের কোলে মূসা (আঃ) – প্রথম পর্ব পড়তে এখানে ক্লিক করুন

তিনি দাসীদের এ প্রস্তাবে সম্মতি জানিয়ে বলেন, বাজারে বা অন্য যেখানে অনেক নারীর সমাগম হয়, সেখানে নিয়ে এমন কোন নারীর সন্ধান পেলে তাকে আমার নিকট নিয়ে আসবে। যেকোন মূল্যে এ শিশুকে এ শিশুকে স্তন্য পান করানোর দায়িত্বে তাকে নিযুক্ত করা হবে।

এদিকে মূসার মাতা তাঁর মেয়েকে বলেন, তুমি গিয়ে খুবই সতর্কতার সাথে এ খবর নিয়ে আস, ফেরআউনের স্ত্রী আমার শিশু পুত্রকে নদী থেকে উঠিয়ে নেয়ার পর কি বাঁচিয়ে রেখেছে না হত্যা করেছে? কিন্তু সাবধান! তুমি তার বোন-একথা যেন কোন অবস্থাতেই টের না পায়, তা হলে সমূহ বিপদের সম্ভাবনা রয়েছে।

মায়ের নির্দেশ পেয়ে মূসা (আঃ) এর বোন ফেরআউনের প্রাসাদের নিকট পৌঁছে দেখল, দাসীরা এ শিশুকে স্তন্যদুগ্ধ পান করাতে পারে এমন একজন নারীর সন্ধান করছে।

মূসা (আঃ) এর বোন দাসীদের উদ্দেশ্যে বলেন, তোমাদেরকে খুবই চিন্তিত মনে হচ্ছে। এর কারণ কি? তারা বলল, সম্রাজ্ঞী আছিয়া এ শিশুটিকে প্রতিপালন করতে চাচ্ছেন, নদীপথে ভেসে আসা একটি সিন্দুকে তিনি এ শিশুটিকে পেয়েছেন।

সম্রাজ্ঞী শিশুটিকে পুত্ররূপে বরণ করেছেন, কিন্তু শিশুটিকে স্তন্যদুগ্ধ পান করাতে পারে এমন কোন মহিলার সন্ধান পাচ্ছে না। এ পর্যন্ত অনেক মহিলাই এ জন্য এসেছে কিন্তু সে কারো স্তন্য দুগ্ধ পান করছে না। তাই আমরা এমন একজন মহিলার খোঁজ করছি, যে এ শিশুকে স্তন্য দান করবে আর শিশুটিও তা পান করবে।

মূসা (আঃ) এর বোন দেখলেন, ভাইকে মায়ের কোলে ফিরিয়ে দেয়ার এটা এক মহা সুবর্ণ সুযোগ। মূসা (আঃ) এর বোন তাদেরকে বলল, আমি তোমাদেরকে এমন এক ধাত্রীর সন্ধান দিতে পারি।

আমি আশা করি এ শিশু তার স্তন্য পান করবে। ধাত্রী হিসাবে সে খুবই যোগ্য। ঐ মহিলাকে এ শিশুর ধাত্রী নিয়োগ করলে আশা করি সে অতিশয় আদর যত্ন সহকারে স্তন্য দান করে একে লালন-পালন করবে।

পবিত্র কোরআনে আল্লাহ তাআলা বলেনঃ “অতঃপর সে বলল, আমি কি তোমাদেরকে এমন পরিবারের সন্ধান বলব, যারা তোমাদের জন্য এ শিশুটির লালন পালন করবে, আর তারা এর মঙ্গল কামনা করবে।” (সূরা-কাসাস)

মূসার বোনের কথা শুনে দাসীদের তাকে সন্দেহ হল তারা ভাবল, মেয়েটি এত দৃঢ়তার সাথে একজন ধাত্রীর সন্ধান দেবে বলছে এবং এও বলেছে যে, সে শিশুটির মঙ্গলকামী হবে, তাহলে এ শিশুর জন্মদাত্রী একজনই হবেন, অথবা অন্য কোন নিকটতম আত্নীয় হবে।

নতুবা সে এ বিষয়ে এত আস্থার সাথে পরামর্শ দিতে পারে কি করে। দাসীদের মনে বিভিন্ন সন্দেহ জন্ম নেয়ায় তারা মূসার বোনকে নানা প্রকার প্রশ্ন করতে শুরু করে। শিশুর জন্য ধাত্রী নির্বাচন রেখে এখন সন্ধান দানকারীর সাথে শিশুর কি সম্পর্ক তা উদঘাটনেই যেন তারা ব্যস্ত হয়ে পড়ে।

মায়ের কোলে মূসা (আঃ) – পর্ব ৩ পড়তে এখানে ক্লিক করুন

আরো পড়তে পারেন

দুঃখিত, কপি করবেন না।