মক্কা মুকাররমায় যিয়ারতের বিশেষ কয়েকটি স্থান | আমার কথা
×

 

 

মক্কা মুকাররমায় যিয়ারতের বিশেষ কয়েকটি স্থান

coSam ১৪


১. জান্নাতুল মুআল্লাঃ
এটি মক্কার কবরস্থান। এ কবরস্থান যিয়ারত করা মােস্তাহাব। এখানে সাহাবী, তাবেয়ী ও বুযুর্গদের কবর রয়েছে। হযরত খাদীজা (রাযিঃ), হযরত আব্দুল্লাহ বিন যুবায়ের (রাযিঃ)-এর কবরও এখানে রয়েছে। এ কবরস্থানটি হারাম শরীফ থেকে উত্তর পূর্ব দিকে অবস্থিত। এর পাশে রয়েছে মসজিদে জিন। 
* কবরস্থানে প্রবেশ করে সমস্ত কবরবাসীর উদ্দেশ্যে নিম্ন বাক্যে সালাম করবে
السلام عليكم دار قوم مؤمنين وإنا إن شاء الله بكم لاحقون ونسأل الله لنا ولكم العافية
অর্থঃ হে মু'মিন সম্প্রদায়ের আবাস স্থলের অধিবাসীগণ! তােমাদের প্রতি শান্তি বর্ষিত হােক, আমরাও আল্লাহ চাহেতাে তোমাদের সাথে মিলিত হব। আমরা আল্লাহর কাছে আমাদের জন্য এবং তােমাদের জন্য শান্তির আবেদন করছি।
* অতঃপর যথাসম্ভব কুরআন শরীফ পড়ে মাইয়েতকে ছওয়াব পৌছে দিবে। বিশেষভাবে সূরা-বাকারার শুরু থেকে মুফলিহুন পর্যন্ত, আয়াতুল কুরছী, সূরা বাকারার শেষ তিন আয়াত সূরাফাতেহা, সূরা-ইয়াসীন, সূরা-মূলক, সূরা-তাকাছুর বা সূরা এখলাস ১০/১১/১২ বার কিংবা ৭ বার বা যে পরিমাণ সহজে পড়তে পারেন পড়ে দুআ করবেন। মাইয়েতের মাগফিরাতের জন্যও দুআ করবে।

২. রাসূল (সাঃ)-এর জন্মস্থানঃ 
এটি হারাম শরীফের পূর্ব দিকের চত্বরের পূর্বে অবস্থিত। বর্তমানে এটিকে একটি পাঠাগার বানিয়ে রাখা হয়েছে। 
৩. জাবালে ছওরঃ
এটি মক্কা শরীফ থেকে তিন মাইল দক্ষিণ পূর্বে অবস্থিত একটি পাহাড়। হিজরতের সময় নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম হযরত আবু বকর সিদ্দীক (রাযিঃ)-কে সহ তিন রাত এ পাহাড়ের চূড়ায় একটি গুহায় অবস্থান করেছিলেন। যে গুহাকে ‘গারে ছওর' বলা হয়।
৪. জাবালে নূর ও গারে হেরাঃ
মক্কা শরীফ থেকে তিন মাইল উত্তর-পূর্ব দিকে অবস্থিত একটি পাহাড়ের নাম জাবালে নূর । এই পাহাড়ের চূড়ায় অবস্থিত একটি গুহাকে বলা হয় “গারে হেরা' বা হেরা গুহা। নবুওয়াত লাভের পূর্বে নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এই গুহায় ইবাদতে মগ্ন থাকতেন। এখানেই সর্বপ্রথম ওহী নাযেল হয়েছিল। 

৫. মুযদালিফার ময়দানঃ
এটি একটি ময়দান। এর এক প্রান্তে মসজিদে মাশআরুল হারাম রয়েছে। যাকে মুযদালিফার মসজিদ বলা হয়। মুযদাফিলা শব্দের অর্থ নিকটবর্তী বা রাতের অংশ। জাহিলী যুগের লােকেরা এখানে জড় হয়ে বংশীয় গৌরবগাথা ও বীরত্ব বর্ণনায় লিপ্ত হত। ইসলাম তার পরিবর্তে এখানে জড় হয়ে যিকর তথা আল্লাহর বড়ায়ী বর্ণনা করার শিক্ষা দিয়ে সেই কুসংস্কারের মূলােৎপাঠন করেছে।
 ৬. আরাফাত ময়দানঃ
এখানে মসজিদে নামিয়া রয়েছে। আরাফাত শব্দের অর্থ পরিচিতি। এক বর্ণনা মতে হযরত আদম ও হাওয়া (আঃ)-এর জান্নাত থেকে পৃথিবীতে ভিন্ন ভিন্ন স্থানে অবতরণের পর এ ময়দানে দুজনের মধ্যে সাক্ষাত ও পরিচিতি ঘটেছিল বলে এ ময়দানকে আরাফার ময়দান বলা হয়। আর এক বর্ণনা মতে হযরত জিব্রাঈল (আঃ) হযরত ইব্রাহীম (আঃ)কে হজ্জের যাবতীয় বিষয় শিক্ষা দেয়ার পর এখানে এসে জিজ্ঞাসা করেছিলেন হজ্জ সংক্রান্ত যাবতীয় বিষয়ের পরিচিতি লাভ করেছেন কি? এ থেকেই এখানের নাম হয় আরাফাত।

৭. মিনাঃ
এখানে মসজিদে খায়েফ রয়েছে, যাতে বহু নবী ইবাদত বন্দেগী করেছেন। বর্ণিত আছে এখানে ৭০ জন নবীর কবর রয়েছে। এ ময়দানের পূর্ব দিকে কুরবানীর স্থান। 
৮. মসজিদে জিনঃ
এখানে জিনগণ হাজির হয়ে কুরআন তিলাওয়াত শুনেছিল। আর এক বর্ণনা মতে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম জিনদের প্রতিনিধি দলের সাথে সাক্ষাত করতে যাওয়ার সময় হযরত ইবনে মাসউদ (রাযিঃ)কে এখানে রেখে যান। এটি জান্নাতুল মুআল্লার গেট থেকে সামান্য দক্ষিণ পূর্বে অবস্থিত।

৯. মসজিদে তানঈম/মসজিদে আয়েশাঃ
হযরত আয়েশা (রাঃ) এখান থেকে উমরার এহরাম বেধে উমরা করেছিলেন। হাজীগণ সাধারণতঃ এখানে গিয়ে এহরাম বেধে এসে উমরা করে থাকেন।
১০. মসজিদুর রায়াহ : রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম মক্কা বিজয়ের সময় এখানে ঝান্ডা স্থাপন করেছিলেন। এটি হারাম শরীফ থেকে জান্নাতুল মুআল্লায় যেতে গাজা মার্কেট এলাকা পার হওয়ার পর রাস্তার পূর্ব পার্শ্বে অবস্থিত। 
১১. মুআবাদা?
এটি মক্কার একটি স্থান। এখানে কুরায়শ ও বনূ কিনানা গােত্রের লােকেরা রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সহ বনু মুত্তালিব ও বনু হাশেমকে মক্কা থেকে বের করে আনার জন্যে অঙ্গীকারাবদ্ধ হয়েছিল। অবশেষে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ও বন্ মত্তালিব এবং বহু হাশেম শিবে আবী তালিবে (বর্তমান নাম শিআবে আলী) অন্তরীণ হয়ে পড়েন। মুআবাদা নামক বর্তমান এ স্থানটির প্রাচীন অনেকগুলাে নাম ছিল। তা হল- আবতাহ, বাহা, বাতুনে মুহাসাব ও খায়ফে বনী কিনা। রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বিদায় হজ্জে মিনা থেকে মক্কায় ফেরার পথে এখানে অবস্থান করেছিলেন। 

১২. জাবলে আবী কুবায়ছঃ
এটি একটি পাহাড়। এ পাহাড়টি মসজিদে হারামের দক্ষিণ পূর্ব পাশে অবস্থিত, যার কিছু অংশ কেটে পূর্বের চত্বরের অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে, আর অবশিষ্ট অংশের উপর রাজপ্রাসাদ রয়েছে। হযরত নূহ (আঃ)-এর তুফানের সময় থেকে হাজরে আসওয়াদ এ পাহাড়ের উপর রাখা ছিল। প্রসিদ্ধ তাবিয়ী মুজাহিদ'-এর বর্ণনা মতে আল্লাহ তাআলা পৃথিবীতে পাহাড়ের মধ্যে সর্ব প্রথম এ পাহাড়টি সৃষ্টি করেন।

সূত্রঃ আহকামে যিন্দেগী 

পরবর্তী গল্প
মত্যুকে বেশি করে স্মরণ করতে হবে

পূর্ববর্তী গল্প
আয়ুর স্তরের বর্ণনা

ক্যাটেগরী