ভ্রাতৃত্ব বন্ধনে আবদ্ধ আনসার ও মুহাজিররা | আমার কথা
×

 

 

ভ্রাতৃত্ব বন্ধনে আবদ্ধ আনসার ও মুহাজিররা

coSam ১১৪


যারা ইসলাম কবুলের কারণে জন্মভূমি মক্কা ত্যাগ করে রিক্ত হস্তে মদীনায় আশ্রয় নেন ইসলামের ইতিহাসে তাঁরা মুহাজির নামে অবিহিত। মদীনাস্থ যেসব মুসলমান মক্কা হতে আগত মুসলমানদের ভাই বলে গ্রহণ করে নানভাবে সাহায্য সহযোগিতা করেছেন তাঁরা আনসার নামে অভিহিত। মক্কা হতে আগত মুসলমানদেরকে সাহায্য সহযোগিতার উপরই জীবনযাত্রা নির্বাহ করতে হত। কিন্তু মুহাজিররা ছিলেন প্রকৃতগতভাবে স্বাধীনচেতা, আত্মনির্ভরশীল এবং কর্মঠ। নিজেদের প্রয়োজনে পুরণার্থ অন্যের প্রতি সর্বক্ষণ তাকিয়ে থাকা তাঁদের প্রকৃতি বিরুদ্ধে।

মসজিদে নববী নির্মাণের পর রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বিষয়টির প্রতি মনোযোগ দেন। তিনি পবিত্র কোরআনের ঘোষণা উদ্ধৃত করে বলেন-

إِنَّمَا الْمُؤْمِنُونَ إِخْوَةٌ

অর্থাৎ এক মুমিন অন্য মুমিনের ভাই। তাঁর ঘোষণায় মদীনায় আনন্দের বান ডাকে। মুসলমানরা খুশীতে আত্মহারা হয়ে পড়েন। রাসূল (সাঃ) আনসারদেরকে ডেকে বলেন, মুহাজিররা তোমাদের ভাই। সুতরাং আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের জন্য তোমরা দুজন করে ভ্রাতৃত্ব বন্ধনে আবদ্ধ হও। রাসূল (সাঃ)-এর এ ঘোষণা শোনামাত্র আনসার ও মুহাজির একজন অন্যজনের সাথে ভ্রাতৃত্ব বন্ধনে হলেন।

ভ্রাতৃত্ব বন্ধনে আবদ্ধ হওয়ার সময় ভ্রাতৃযুগলের প্রকৃতিগত বৈশিষ্ট্যের প্রতি বিশেষভাবে লক্ষ্য রাখা হয়। কেননা, পরস্পরের রুচি প্রকৃতির প্রতি লক্ষ্য করে ভ্রাতৃত্ব বন্ধন স্থাপিত হলে একের আত্মা অন্যকে আঁকড়ে ধরবে। এদিকে লক্ষ্য রেখেই রাসূল (সাঃ) সাথে সায়ীদ বিন যায়দের সাথে উবাই বিন কা'ব সা'দ সাথে হযরত সা'দ বিন রবীর ভ্রাতৃত্ব বন্ধন স্থাপন করে দেন।

পরবর্তী গল্প
আনসারদের উদারতা

পূর্ববর্তী গল্প
মসজিদে নববী নির্মাণ

ক্যাটেগরী