বে-ঈমানদারের রূহ কবজ | আমার কথা
×

 

 

বে-ঈমানদারের রূহ কবজ

coSam ১৫


বে-ঈমানদারদের মৃত্যুর সময় আজরাঈল তার আসল চেহারায় আবির্ভূত হন। সে সময় ঐ মুমূর্ষ ব্যক্তির চোখের দৃষ্টি যতদূর পর্যন্ত যায়, সে শুধু উক্তরূপ ফেরেশতাকেই দেখতে পায়।

উক্ত ফেরেশতা খারাপ লােকের রূহ কবজ করার জন্য একটি চাটাই নিয়ে আসে। কিছুক্ষণ পরেই মালাকুল মউত আজরাঈল (আঃ) তার মাথার দিকে বসে বলে : হে বদখত আত্মা! আল্লাহ্ তা'আলার অসন্তুষ্টির দিকে তাড়াতাড়ি বের হয়ে আস। ঐ ব্যক্তির আত্মাটি এ ঘােষণা শােনার পর শরীরের বিভিন্ন স্থানে পলায়ন করার চেষ্টা-প্রচেষ্টা করতে থাকবে।

তখন মালাকুল মউত বেঈমানের শরীর হতে আত্মাকে এমনভাবে টেনে হিছড়ে বের করবে যেমনভাবে কোন গরম লােহার সিক ভিজা তুলার মধ্যে ঢুকিয়ে দিয়ে পুনরায় টেনে বের করলে তার সাথে জড়িয়ে হাতে তুলা বের হয়ে থাকে। অতপর যমদূত ঐ বেঈমানের আত্মাটিকে হাতে তুলে নেয়। মুহূর্তের মধ্যে অন্যান্য তাঁর হাত হতে খারাপ আত্মাকে নিজেদের হাতে নিয়ে চাটাইয়ের মধ্যে রেখে মােড়িয়ে ফেলে।

কোন কোন বর্ণনায় এসেছে যে, তারা জাহান্নাম থেকে সবচেয়ে নিকৃষ্ট একটি নেকড়া নিয়ে আসবে। উক্ত চাটাইয়ের মধ্য হতে গলিত লাশের দুর্গন্ধের মত ভীষণ দুর্গন্ধ বের হতে থাকে। অতপর ফেরেশতাগণ চাটাইতে মােড়ান লাশ বহন করে আসমানের পানে চলতে থাকে।

তারা যখন যে ফেরেশতাদের নিকট দিয়ে যেতে থাকবে, তখন তারা জিজ্ঞেস করবে: এ বদবত আত্মাটি কার? তখন আত্মহনকারী ফেরেশতাগণ তার ও তার পিতার কদর্য নামদ্বয় উচ্চারণ করে বলবে : এটি অমুকের পুত্র অমুকের আত্মা। 

এভাবে আত্মা বহনকারী ফেরেশতাগণ যখন প্রথম আসমানের দরজার নিকট পৌছবে এবং দরজা উন্মুক্ত করার জন্য চেষ্টা করবে; কিন্তু আসমানের দরজা খােলা হবে না। অতপর আসমান হতে আল্লাহ তা'আলা বলবেন: হে ফেরেশতারা! এর নাম সিজ্জীনে তালিকভুক্ত কর।

পরবর্তী গল্প
আয়েশা রাযি প্রাথমিক অবস্থা (জন্ম থেকে বিবাহ পর্যন্ত)

পূর্ববর্তী গল্প
মৃত্যুর যন্ত্রণা

ক্যাটেগরী