বারযাখী জীবন মৃত্যু থেকে হাশর পর্যন্ত ও কবর | আমার কথা
×

 

 

বারযাখী জীবন মৃত্যু থেকে হাশর পর্যন্ত ও কবর

coSam ১১


কিয়ামতের পূর্বের আর একটি বিষয় হল বারযাখী জীবন। বারযাখী জীবন বলতে আমরা মৃত্যুর পর থেকে কিয়ামত সংগঠিত হবার পর পূনরুত্থানের পূর্বের জীবনকে বুঝি এটিকে পবিত্র কুর’আন বারযাখ (পদা) নামে আখ্যায়িত করেছেন।

বারযাখ শব্দটি আরবী। এর শাব্দিক অর্থ অন্তরায়, পৃথককারী, আলাদা বস্তু। এ কারণেই মৃত্যুর পর কিয়ামত ও হাশর পর্যন্ত কালকে বারযাখ বলা হয়। কারণ, এটা ইহকাল ও পরকালের জীবনের মাঝখানে সীমা প্রাচীর।

এখান থেকে  কেউ পৃথিবীতে ফিরে আসে না এবং কিয়ামত ও হাশর-নাশরের পুর্বে পুনর্জীবনও পায়। এটাই বিধান। এ প্রসঙ্গে মহান আল্লাহ বলেন : “যখন তাদের কারাে মৃত্যু আসে তখন সে বলে হে আমার পালন কতা আমাকে পুনরায় (দুনিয়াতে) প্রেরণ কর যাতে আমি সৎকর্ম করতে পারি যা আমি করিনি। কখনই না। 

এতে তার একটি কথার কথা মাত্র। তাদের সামনে বারযাখ আছে পুনরুত্থান দিবস পর্যন্ত।” উল্লেখ্য, মানুষ মৃতব্যক্তিকে দাফন করার কারণে হাদীসে বরযখের শান্তি বা শাস্তি কে কবরই বলা হয়। এর অর্থ এই নয় যে, যাদেরকে আগুনে পুড়িয়ে ফেলা হয় কিংবা পানিতে ডুবে মারা যায়, তারা জীবিত থাকে না। মূলত শান্তি ও শাস্তির সম্পর্ক থাকে রূহের সাথে।

এ কথা মনে রাখতে হবে যে, আল্লাহ পাক জ্বালিয়ে দেয়া শরীরকে একত্র করে শাস্তি ও পুরস্কার দেয়ার শক্তি রাখেন।

কবরঃ মানুষ স্বাভাবিকভাবে ইন্তিকাল করার পর ইসলামী শরীয়াতে মৃতব্যক্তিকে কবরের ব্যবস্থা করে দাফন করার জন্য নির্দেশ দিয়েছে কিন্তু যদি কেউ পানিতে ডুবে, আগুনে পুড়ে কিংবা নভােমন্ডল বা ভুমন্ডলের এমন কোন স্থানে এমনভাবে মারা যায়,

যার ফলে তাকে কবরস্ত করার সুযােগ না থাকে, তবুও তার পুনরুত্থান না হওয়া পর্যন্ত সময়টা সম্পূর্ণই কবরের বসতির মধ্যে শামিল করা হয়। এজন্য আল্লাহ তা'আলা সকলকেই কবরস্থ করে থাকেন। এ প্রসঙ্গে আল্লাহ্ তা'আলা ঘােষণা করেন:“মানুষ ধ্বংস হােক, সে কত অকৃতজ্ঞ।

তিনি তাকে কী বস্তু থেকে সৃষ্টি করেছেন? শুক্রাণু থেকে তাকে সৃষ্টি করেছেন। এরপর তাকে সুপরিমিত করেছেন, তৎপর তার পথ সহজ করেছেন।

এরপর মৃত্যু ঘটানাে ও কবরস্থ করেন। তৎপর যখনই ইচ্ছা কবরে তাকে পুনরুজ্জীবিত করবেন। এ প্রসঙ্গে রাসূলুল্লাহ সা. বলেছেন, “নিশ্চয়ই কবর বেহেশতের উদ্যানসমূহের একটি উদ্যান অথবা দোযখের গর্তসমূহের একটি গর্তবিশেষ।  

পরবর্তী গল্প
মৃত ব্যক্তিকে দাফন ও কবজের পর রূহের উর্ধ্বেগমন

পূর্ববর্তী গল্প
মৃত্যুর সময় মুমিনের অবস্থা

ক্যাটেগরী