পাপিষ্ট ফেরাউনের বিবরণ

ফেরাউন কোন রাজা বা বাদশাহর নাম নয় উপাধি। তৎকালে রাজতক্তে যে ব্যক্তিই আরোহন করত সে-ই ফেরআউন নামে আখ্যায়িত হত। এভাবে হজরত মুসা (আঃ)-এর যমানায় মিসরের সিংহাসনে যে সমাসীন ছিল তার উপাধি ফেরাউন ছিল।

এ ফেরাউন হযরত মূসা (আঃ)-এর জন্মগ্রহণের বহু পূর্ব হতেই মিসরে রাজত্ব করছিল। ফেরআউনের পিতা ও দাদার নাম নিয়ে মতানৈক্য রয়েছে। কারো কারো বর্ণনা মতে ফেরআউনের পিতার নাম ছিল মাসআর এবং দাদার নাম ছিল রায়হান। আবার কারো মতে-যে ফেরাউনের সাথে হযরত মূসা (আঃ)-এর টক্কর বাঁধে সে ফেরআউনের নাম ছিল মাসআর এবং তার পিতার নাম ছিল ওলিদ ও দাদার নাম ছিল রায়হান।

অবশ্য পিতা ও দাদার নামে মতানৈক্য থাকলেও লোকের মতে ফেরাউনের নিজের প্রকৃৎ নাম ছিল কাবুস। অবশ্য কিছু সংখ্যক ব্যক্তির মতে ফেরআউনের নাম ছিল মাসআব তবে ফেরাউনের নাম যাই হোক না কেন, ফেরআউনের ব্যাপক প্রচলন ও পরিচিতির কারণে তার মূল নাম ঢাকা পড়ে গিয়ে সে ফেরআউন নামেই সুপরিচিত হয়েছিল।

কাবুস (ফেরাউন) মিসরের সিংহাসনে অধিষ্ঠিত হওয়ার পর সে নিজেকে নিজে দ্বিতীয় রামসিস নামে ঘোষণা করেছিল।

আল্লাহর অবাধ্য, অভিশপ্ত, পাপীষ্ঠ ও বিদ্রোহী বান্দাহদের ফেরআউন ছিল অন্যতম।

ফেরআউনের স্পর্দা ও ঔদ্ধত্য এমন পর্যায়ে পৌঁছেছিল যে, সে নিজেকে খোদা বলে দাবী করেছিল।

আরো পড়তে পারেন

দুঃখিত, কপি করবেন না।