নবী কারীম (সাঃ ) ও হযরত আবু বকর (রাঃ ) এর হিজরতের বিবরণ – পর্ব ৩ | আমার কথা
×

 

 

নবী কারীম (সাঃ ) ও হযরত আবু বকর (রাঃ ) এর হিজরতের বিবরণ – পর্ব ৩

coSam ১০৪


নবী কারীম (সাঃ ) ও হযরত আবু বকর (রাঃ ) এর হিজরতের বিবরণ – পর্ব ২ পড়তে এখানে ক্লিক করুন

অবশেষে যখন নবী কারীম (সাঃ) ও হযরত আবু বকর (রাঃ) সম্পর্কে মক্কায় সব রকম আলোচনা বন্ধ হইয়া গেল এবং হযরত আমের ইবনে ফুহাইরা (রাঃ)আসিয়া তাহাদিগকে অবহিত করিলেন যে, লোকজনের মধ্যে এই ব্যাপারে আলোচনা বন্ধ হইয়া গিয়াছে। তখন হযরত আমের (রাঃ) ও ইবনে উরাইকিত উভয়ের বাহন লইয়া হাজির হইলেন।

তাঁহারা দুইদিন দুই রাত্র গুহায় কাটাইয়া ছিলেন। অতঃপর তাঁহারা সেখান হইতে রওয়ানা হইলেন, তাহাদের সহিত হযরত আমের ইবনে ফুহাইরা (রাঃ) ও চলিলেন। তিনি তাহাদের বাহন হাঁকাইতেন, খেদমতে করিতেন এবং বিভিন্ন কাজে তাহাদের সাহায্য করিতেন। হযরত আবু বকর (রাঃ) পালাক্রমে তাহাকে নিজের পিছনে বাহনে বসাইতেন। হযরত আমের ইবনে ফুহাইরা (রাঃ) ও বনু আদীর পথপ্রদর্শক ব্যতিত আর কেহ তাহাদের সহিত ছিল না।

হযরত আয়েশা (রাঃ) বলেন, রাসূল (সাঃ) বলেন, রাসূল (সাঃ) প্রত্যহ সকালে বা সন্ধ্যায় নির্দিষ্ট এক সময়ে হযরত আবু বকর (রাঃ)এর ঘরে আসিতেন। যেদিন আল্লাহ তায়ালা তাঁহার রাসূল (সঃ)কে হিজরত করিবার এবং আপন কওমের মধ্য হইতে মক্কা ছাড়িয়া চলিয়া যাইবার অনুমতি দিলেন, সেদিন তিনি ঠিক দ্বিপ্রহরের সময়ে তিনি কখনও আমাদের নিকট আসিতেন না। হযরত আবু বকর (রাঃ) তাহাকে এই অসময়ে আসিতে দেখিয়া বলিলেন, নিশ্চয় রাসূল (সাঃ)এর এই অসময়ে আগমনের পিছনে নতুন কোন ব্যাপারে রহিয়াছে। হযরত আয়েশা (রাঃ) বলেন, রাসূল (সাঃ) ঘরে প্রবেশ করিলে হযরত আবু বকর (রাঃ) তাঁহাকে জায়গা দিবার জন্য নিজের চৌকি হইতে একটু পিছনে সরিয়া বসিলেন। রাসূল (সাঃ) বসিলেন।

হযরত আবু বকর (রাঃ) এর নিকট তখন আমি ও আমার বোন হযরত আসমা বিনতে আবু বকর (রাঃ) ব্যতিত আর কেহ ছিল না। রাসূল (সাঃ) বলিলেন, তোমার নিকট যাহারা বসিয়া আছে তাহাদিগকে বাহিরে পাঠাইয়া দাও। হযরত আবু বকর (রাঃ) বলিলেন, ইয়া রাসূলাল্লাহ, ইহারা দুইজন তো আমার মেয়ে। আমার পিতা-মাতা আপনার উপর কোরবান হউক, ইহাদের এইখানে থাকায় কোন অসুবিধা নাই। তিনি বলিলেন, আল্লাহ তায়ালা আমাকে চলিয়া যাইবার এবং হিজরত করিবার অনুমতি দিয়াছেন। হযরত আবু বকর (রাঃ) বলিলেন, ইয়া রাসূলাল্লাহ (এই হিজরতের সফরে) আমি আপনার সহিত যাইতে চাই।

রাসূল (সাঃ) বলিলেন, তুমিও সঙ্গে চল। হযরত আয়েশা (রাঃ) বলেন, আল্লাহর কসম, আমি জানিতাম না যে, মানুষ আনন্দেও কাঁদে। সেদিন হযরত আবু বকর (রাঃ) কে কাঁদিতে দেখিয়া তাহা জানিতে পারিলাম। অতঃপর তিনি আরজ করিলেন, হে আল্লাহর নবী, এই দুইটি সওয়ারী আমি এই সময়ের জন্য প্রস্তুত করিয়া রাখিয়াছি। অতঃপর তাঁহারা বনু দুয়েল ইবনে বকরের আবদুল্লাহ ইবনে উরাইকিত নামক এক ব্যক্তিকে পারিশ্রমিকের বিনিময়ে পথ প্রদর্শক জন্য নিযুক্ত করিলেন। আবদুল্লাহ মুশরিক ছিল এবং তাহার মা সাহম ইবনে আমর গোত্রীয়া ছিল। বাহন দুইটি তাহার নিকট দিয়া দিলেন এবং নির্ধারিত সময় পর্যন্ত সে বাহন দুইটি বাহন চরাইতে থাকিল।

সূত্রঃ হায়াতুস সাহাবা

নবী কারীম (সাঃ ) ও হযরত আবু বকর (রাঃ ) এর হিজরতের বিবরণ – পর্ব ৪ পড়তে এখানে ক্লিক করুন

পরবর্তী গল্প
নবী কারীম (সাঃ ) ও হযরত আবু বকর (রাঃ ) এর হিজরতের বিবরণ – পর্ব ৪

পূর্ববর্তী গল্প
নবী কারীম (সাঃ ) ও হযরত আবু বকর (রাঃ ) এর হিজরতের বিবরণ – পর্ব ২

ক্যাটেগরী