দ্বীনী তাবলীগে ধৈর্য | আমার কথা
×

 

 

দ্বীনী তাবলীগে ধৈর্য

coSam ১২৩


ওসায়াদ আগে থেকেই মোসআব বিন ওমায়র ও আসআদ বিন যোরাবার উপর তাঁদের কার্যক্রমের উপর ক্ষিপ্ত ছিল। এখন সমাজপতির নির্দেশ পেয়ে সে আরো ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে। সুতরাং সে কোন প্রকার জিজ্ঞাসাবাদ ছাড়াই অত্যন্ত উগ্র ও রূঢ় ভাষায় তাদেরকে বলেন যদি জীবনের সামান্যতম মায়াও থাকে তবে কোনরূপ দিরুক্তি না করে এক্ষণই তোমরা দেশ থেকে বেরিয়ে যাও। তোমরা আমাদের সরল সহজ লোকগুলোকে বিভ্রান্ত করছ।

হজরত মোসআব বিন ওমায়র (রা) অত্যন্ত শান্তভাবে ওসায়দকে বলেন- আরে ভাই, বসুন। শান্ত হোন। আমরা কি বলতে চাই ধীরে সুস্থে শুনুন। জ্ঞান বিবেক যুক্তিযুক্ত বলে সায় দিলে তা গ্রহন করবেন, আর জ্ঞান বিবেকের কাছে মন্দ প্রতিপন্ন হলে বিরুদ্ধাচরণ করবেন।

এমন তীব্র উগ্র ও রূঢ় আচরণের পরও এহেন যুক্তিপূর্ণ বিনর্ম জবাবে ওসায়দ কিছুটা লজ্জিত হন। তিনি হজরত মোসআব (রা)-এর প্রস্তবে নীরবে বসে পড়েন। হজরত মোসাআব বিন ওমায়র (রা) অত্যন্ত সহজ সরল ও প্রাঞ্জল ভাষায় ধীর গম্ভীর স্বরে ইসলামের সত্যতা এবং শিক্ষা ওসায়দকে বুঝিয়ে দেন। সর্বশেষে মধুর স্বরে কোরআনের কতগুলো আয়াত পড়ে শুনান। কোরআন তিলাওয়াত শুনে ওসায়দের অন্তর একেবারে গলে যায়।

তিনি সেখানেই ইসলাম গ্রহন করেন এবং কিছুক্ষণ এখানে অবস্থান করে সাদের সাথে সাক্ষাত করার জন্য প্রস্থান করেন। প্রস্থান কালে বলে গেলেন, আমি কৌশলে সাদকে আপনাদের কাছে প্রেরণ করব যদি তাঁকে ইসলামের সত্যতা ও শিক্ষার বিষয় বুঝিয়ে দিতে পারেন আর আল্লাহ পাক তার অন্তরের অন্ধকার দূর করেন, তবে অন্তর আবদুল আশহাল গোত্রের কেউ আর ইসলামের বিরোধিতা করবে না।

ওসায়দ এখান থেকে বেরিয়ে সোজা সাদের কাছে চলে যান। তিনি লোকজনকে সাথে বসে বিভিন্ন বিষয়ে আলাপ করছিলেন। ওসায়দের চেহারা দেখে তিনি মন্তব্য করলেন- ব্যাপার তো তেমন সুবিধার মনে হচ্ছে না। সাদ উদ্বেগাকুল হয়ে জিজ্ঞেস করলেন, কি করে এলে? ওসায়ত বলেন, তাঁদের সাথে কথাবার্তা বলেছি, আমাদের উদ্বেগের কারণ দেখি না। তাদেরকে নিষেধও করেছিলাম।

তারা বলল, আপনি যা বলেন সে মতই কাজ হবে। কিন্তু পথে এসে শুনলাম, বনী হারেসা আসআদকে হত্যা করতে অস্ত্রেশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে বের হয়েছে। উদ্দেশ্য আসআদকে হত্যা করে আপনাকে অপদস্থ করা। কেননা, আসআদ আপনার খালাত ভাই-এ জন্যই এ ব্যবস্থা।

ওসায়দের উল্লিখিত কথায় সাদ বিন মোআয অসন্তুষ্ট হয়ে বলেন- তুমি তো দেখছি কোন কাজই করে আসতে পারনি। উপরুন্ত বাড়তি আরেক বিপদের সংবাদ দিলে। তিনি বিলম্ব না করে উলঙ্গ তরবারি হাতে সেখানে উপস্থিত হয়ে আসআদকে উদ্দেশ্য করে বলেন-তুমি আমার খালাত ভাই তাই এখনও তোমার ঘাড়ে মস্তক শোভা পাচ্ছে নতুবা ভূমিতে গড়াগড়ি যেত।

আমাদের নির্বোধ সহজ সরল লোকগুলোকে বিভ্রান্ত করার এ কি ফন্দি আটা হচ্ছে। সুবিজ্ঞ প্রচারক হজরত মোসআব (রা) সাদকে আর বেশি দূর অগ্রসর হতে না দিয়ে ওসায়দের সাথে যে কৌশল অবলম্বন অবলম্বন করেছিলেন সে একই কৌশলে অবলম্বন করে তাকেও নরম করে ফেলেন। কিছুক্ষণ আলাপ আলোচনা এবং ইসলামের সত্যতা, শিক্ষা সম্পর্কে অবগত হয়ে ও কোরআন তিলাওয়াত শুনে তৎক্ষণাৎ ইসলাম গ্রহণ করেন।

 

পরবর্তী গল্প
আবদুল আশহাল সম্প্রদায়ের সকলের ইসলাম গ্রহণ

পূর্ববর্তী গল্প
সমাজ নেতাদের বিরুদ্ধাচরণ

ক্যাটেগরী