তারেকের কাহিনী | আমার কথা
×

 

 

তারেকের কাহিনী

coSam ২১৮


তিরমিযী, নাসাঈ ও বায়হাকী শরীফে তারেকের সূত্রে নিম্নের ঘটনাটি বর্ণিত হয়েছে। তাঁর পিতার নাম আবদুল্লাহ। তারেক বলেন- আমি যুলমাজায বাজারে দণ্ডায়মান। এমন সময় দেখলাম, এক সুদর্শন লোক একটা জুব্বা পরে বাজারের চার দিকে ঘুরছে আর উচ্চ স্বরে বলছে- হে মানব সকল, তোমরা সবাই বল, আল্লাহ এক অদ্বিতীয়, তিনি ছাড়া আর কোন ইলাহ নেই, তা হলে তোমরা সফলকাম হবে। সাথে সাথে দেখলাম, আরেকটি লোক তাঁর পিছনে পিছনে বলে বেড়াচ্ছে - সাবধান, তোমরা এর কথা শুনো না, এ ভীষণ জাদুকর এবং মিথ্যাবাদী। এ বলে লোকটি সুদর্শন ব্যক্তির প্রতি পাথর ছুঁড়ে মারছে।

আমি সুদর্শন ব্যক্তি এবং তাঁর ব্যাপারে কূটক্তিকারী লোকটি সম্পর্কে জানতে চাইলে আমার সঙ্গীয় বয়স্ক লোকেরা বলল- সুদর্শন লোকটি হাশেম বংশসম্ভূত, যিনি নিজেকে আল্লাহর রাসূল বলে দাবী করেন। আর দ্বিতীয় লোকটি তাঁর চাচা আবদুল ওযযা আবু লাহাব।

এ ঘটনার পর অনেকগুলো বছর মহাকালের গর্ভে বিলীন হয়ে যায়। আমরা একদা এক কাফেলা সহকারে খেজুর কেনার উদ্দেশ্যে মদিনায় যাই। আমরা মদীনার নিকটবর্তী হয়ে বাইরে একটি খেজুর বাগানে বিশ্রাম নিচ্ছিলাম। এ সময় চাদর গায়ে লুঙ্গিপরা একজন লোক এসে আমাদের সালাম দেন এবং মধুর সম্ভাষণে আমাদের পরিচয় জানতে চান। আমাদের সাথে একটা লাল রংয়ের উট ছিল। তিনি সেটির বিক্রয় মূল্য জানতে চান। আমরা নির্দিষ্ট পরিমাণ খেজুর তাঁর বিক্রি মূল্য দাবী করলে তিনি কোন দরদাম না করেই উটটির নাসারজ্জু ধরে নগর অভিমুখে চলে যান। তিনি চলে গেলে আমাদের হুস হল। আমরা বলাবলি করতে লাগলাম, মূল্যও নিলাম না আর লোকটির পরিচয়ও জানলাম না। এমনিতেই একটা অপরিচিত লোকের হাতে উটটি ছেড়ে দেয়া কি ঠিক হল!

আমাদের সাথে বয়স্কা এক মহিলা ছিলেন। তিনি আমাদেরকে আশ্বস্ত করে বলেন, নিশ্চিন্ত থাক। আমি লোকটির চেহারা মনোনিবেশ সহকারে লক্ষ্য করেছি, এমন চেহারা কোন প্রঞ্চক, প্রতারক স্বভাববিশিষ্ট লোকের হতে পারে না। নিশ্চিন্ত থাক, আমি তোমাদের উটের মূল্যের জন্য দায়ী থাকলাম। কিছুক্ষণ পরেই নগরীর দিক থেকে এক লোক এসে বলল- আমি রাসূল (সাঃ)-এর নিকট থেকে এসেছি। উটের মূল্য বাবত এ খেজুরগুলো আপনারা ওজন করে নিন। আর এগুলো তিনি আপনাদের খাওয়ার জন্য উপঢৌকন স্বরূপ পাঠিয়েছেন। আপনারা এগুলো গ্রহণ করলে তিনি খুব খুশী হবেন।

এরপর যথাসময়ে আমরা নগর অভ্যন্তরে প্রবেশ করি। মসজিদের নিকটবর্তী হলে দেখলাম, আমাদের আলোচ্য মহাত্মা মিম্বরে দাঁড়িয়ে লোকদেরকে উপদেশ দিচ্ছেন। আমরা তাঁর উপদেশবাণীর শেষের কথাগুলোই শুনতে পাই। তিনি বলছেন- হে লোক সকল! নিঃস্ব অভাবগ্রস্তদেরকে সাহায্য কর, এটা তোমাদের জন্য বিশেষ কল্যাণকর। মনে রেখ, উপরের (দাতার) হাত নিচের (গ্রহীতার) হাত হতে উত্তম। তিনি আরও বলেন- পিতামাতা এবং আত্মীয় স্বজনকে প্রতিপালন কর।

আলোচ্য তারেক বিন আবদুল্লাহ ও তাঁর সঙ্গী মদীনায় আগমন করে কয়েক দিন মদীনায় থেকে ইসলামের শিক্ষা ও আদর্শে অনুপ্রাণিত হন এবং ইসলাম গ্রহণ করে স্বদেশ ভূমে প্রত্যাবর্তন করেন। তারেক ও তাঁর সঙ্গীদের প্রচার মহিমায় তাঁদের এলাকার সব লোকই ইসলাম গ্রহণ করে।

পরবর্তী গল্প
নাজরান প্রতিনিধি দল

পূর্ববর্তী গল্প
রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এর ওফাত

ক্যাটেগরী