ছাগল - ভেড়ার বুদ্ধি | আমার কথা
×

 

 

ছাগল - ভেড়ার বুদ্ধি

coSam ১০৪


এক ব্যক্তির ছিল একটি ছাগল, আর একটি ভেড়া। তাদের মধ্যে ছিল খুব বন্ধুত্ব।  ছাগলের ছিল খুব বুদ্ধি। প্রচুর সাহস। আর ভেড়ার বুদ্ধি ও সাহস কম ছিল।

তারা দু'জন যে দিকেই যেত এক সাথেই যেত। ছাগল যদি কারো একটি শস্য ক্ষেত খেত, অমনি ভেড়া গিয়ে সবগুলো শস্য নষ্ট করে ফেলতো। এই ছিল ছাগল আর ভেড়ার প্রতিদিনের কান্ড।

একদিনের ঘটনা। ছাগল এক কৃষাণের ক্ষেতের একটি সবজি গাছ খেয়ে ফেলল। সাথে সাথে ভেড়া গিয়ে সবগুলো সবজি ভেঙ্গে নষ্ট করে ফেলল।

ক্ষেতের মালিক এসে ভেড়া আর ছাগলের কান্ড দেখে তাদেরকে হাতে নাতে ধরে ফেললো। অতঃপর ছাগল ও ভেড়াকে নিয়ে গেল তাদের মালিকের কাছে। দিল তার কাছে নালিশ।

এরকম ঘটনা আরো কয়েক দিন ঘটল। এভাবে মালিকের কাছে প্রায়ই নালিশ আসতে লাগল।

একদা মালিক রাগে- ক্ষোভে ছাগল ও ভেড়াকে বাড়ী থেকে তাড়িয়ে দিল। কি আর করা, দু'বন্ধু ছাড়া পেয়ে মনের সুখে হাঁটতে লাগলো। হাঁটতে তারা গিয়ে উপস্থিত হল এক গভীর অরণ্যে।

তারা আরেকটু সামনে এগুতেই পেল একটি বস্তা। আরেকটু দূরেই পেল বাঘের মাথার কংকাল। তখন পাটের পালার মধ্যে বাঘের মাথা কংকালটি ভরে ভেড়া কাঁধে নিল। অতঃপর তারা পুনরায় হাঁটতে লাগল।

কিছুদূর যেতেই তাদের সামনে পড়লো তিনটি বাঘ। ভেড়াতো বাঘ দেখে ভয়ে থর থর করে কাঁপতে লাগলো। ছাগল ভেড়ার অবস্থা দেখে তাকে অভয় দিয়ে বলল -বিপদে ভয় পেতে নেই। বিপদ -আপদে মনে সাহস রাখতে হয়। মনে মনে আল্লাহকে স্মরণ করে। ছাগলের কথা মনে ভেড়া শুনে কিছুটা সাহস পেল। ছাগলের মত তার পিছু পিছু চলতে লাগলো।

শীতকালের দিন। তাই বাঘ তিনটা বসে পানি গরম করছিল খাওয়ার জন্য। ছাগল ও ভেড়াকে দেখে বাঘদের মধ্যে থেকে একটা বাঘ বলে উঠলো - এই!  তোরা কারা? আমাদের সামনে আয়। তোমাদেরকে মজা করে খাব আমাদের পেটে ভীষণ ক্ষিদে।

ভেড়া তো ভয়ে কাঁপতে কাঁপতে বসেই পড়ল বাঘের কথা শুনে। ভেড়ার অবস্থা দেখে ছাগল তাকে ইশারা করল না পাওয়ার জন্য।

ছাগলও ভয় পেল, কিন্তু প্রকাশ করলো না। সে ভাবলো- ভয় পেলে চলবে। যেভাবেই হোক, বিপদ থেকে বাঁচতে হবে। তাই সাহস করে সে বললো আমরা তোদের যম। পিছনে তোমাদের মতো অনেক বাঘকেই আমরা খেয়েছি। এবার তোদের খাব।

রীতিমত ভয় পেয়ে গেল বাঘ তিনটা ছাগলের কথা শুনে তবুও একটা বাঘ সাহস করে বললো তোরা যে আরো বাঘ খেয়েছিস, তার কোন প্রমাণ আছে?

অবশ্যই আছে এই বলে ছাগল ভেড়াকে বলল ভাইয়া! বস্তার মধ্য থেকে বাঘের কল্লাটা বের করো তো। ভেড়া ছাগলের কথামত বাঘের মাথাটা বের করলো।

ছাগল বলল এটা না। আরো বড়োটা বের করো। ভেড়া বাঘের মাথাটা বস্তার ভিতর রেখে আবার সেটাই বের করলো। ছাগল আবারো বললো, এটা নয়, আরো বড়োটা। ভেড়া শুধু একটা মাথাকেই বার বার বস্তার ভিতর রাখে আর বাহির করে। আর ছাগল বার বার বলে এটা না, আরো বড়োটা।

এ অবস্থা দেখে একটা বাঘ ভীষণ ভয় পেয়ে গেল। সে পায়খানার কথা বলে চলে গেল। অনেকক্ষণ হল সে আসছে না দেখে বাকী দু'দুটোর পেটে আমাশা শুরু হয়ে গেল। অপর বাঘ ভয়ে পালানোর জন্য বললো, দেখি, ও যে গেল, আসছে না কেন? এই বলে সেও চলে গেল। গেল তো গেলই। আসার কোন নাম গন্ধও নেই। বাকীটা পড়ল মহাবিপাকে। সেও বাঁচার জন্য বললো, ওরা যে গেল, দেখি এখনো আসছে না কেন? এই বলে সেও চলে গেল।

ভেড়া আর ছাগল তাদের কান্ড দেখে হাসতে হাসতে যেন মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। যাক, তারা এতক্ষণ পর যেন হাফ ছেড়ে বাঁচলো।

অতঃপর বাঘদের গরম করা পানি তারা দুজনে খেয়ে মনের সুখে আবার হাঁটতে লাগলো। এক সময় সন্ধ্যা নেমে এলো। তারা এ অরণ্যের দিগ -দিগন্ত কিছুই চিনেনা। তাই বিরাট এক গাছে শোয়ার সিদ্ধান্ত নিল। ছাগল গাছের মগডালে উঠে বসল আর ভেড়া নীচের ডালে বসল। এক সময় ঘুমের রাজ্যে! চলে গেল তারা।

এদিকে বাঘ তিনটা এক জায়গায় একত্রিত হল। বাঘদের মধ্য থেকে একজন বললো -আমরা এত বোকা! তারা তো ছিল দু’জন, আর আমরা ছিলাম তিনজন। তাদের ভয়ে আমরা চলে এলাম কেন? মনে হয় আমাদেরকে তারা মিথ্যে ভয় দেখিয়েছে। বাকী দু’বাঘ বলল- চল, ওদেরকে ধরি। এবার আর তাদের রক্ষা নেই। পাওয়া মাত্রই খেয়ে ফেলবো।

এই বলে তারা পূর্বের জায়গায় গিয়ে ছাগল ও ভেড়াকে খুঁজলো। কিন্তু পেল না। সারারাত খোঁজাখুজির পর অবশেষে ছাগল-ভেড়া যেই গাছে ঘুমাচ্ছে, সেই গাছের নীচে গিয়ে তারা শুয়ে পড়ল।

ভোর বেলা ঘুম থেকে উঠলো বাঘ তিনটা। বাঘদের চোখ উপরের দিকে যেতেই মহানন্দে ধেই ধেই করতে লাগলো। তাদের চেচামেচিতে ঘুম ভাঙ্গল ছাগল ও ভেড়ার। ওদের দেখে ছাগল ভয় পেলেও নিজেকে সংযত করলো। আর ভেড়া রীতিমত ভয়ে কাঁপতে লাগলো।

বাঘ রুক্ষ কণ্ঠে বলে উঠল-তোদের আর নিস্তার নেই। এবার বুঝবি-মিথ্যে ভয় দেখানোর মজা ! এই বলে বাঘটা গাছে উঠার জন্য লাফালাফি করতে লাগল। ছাগল ভয় না পেয়ে তাদের কান্ড দেখছিল। আর ভেড়া সে তো কাঁপতে কাঁপতে বাঘের পিঠের উপর পড়েই গেল।

অবস্থা দেখে ছাগল বুদ্ধি করে বলল ভাইয়া! একটা একটা করে আমার কাছে ছুড়ে মার। এবার এদের আস্ত গিলে খাব। একথা শুনে বাঘেরা ভাবলো- তাদের ধরতে হয়তো ভেড়া গাছ থেকে নেমেছে। এ কথা ভাবা মাত্রই বাঘ তিনটি ভয়ে দিল দৌড়। তাদের আর পায় কে?

ছাগল ও ভেড়া তাদের বুদ্ধির গুণে বেঁচে গেল। এরপর গভীর অরণ্যে তাদের জন্য নিরাপদ না ভেবে তারা আবার ফিরে এলো তাদের মালিকের কাছে। আর পাল্টে ফেলল তাদের বদ অভ্যাস যেন মালিক তাদেরকে আর না তাড়ায়।

সূত্রঃ মুসলমানের হাসি  

পরবর্তী গল্প
বরফের ব্যবসা

পূর্ববর্তী গল্প
পাট গাছ

ক্যাটেগরী