চুল ও শরীরের অন্যান্য পশমের মাসায়েল | আমার কথা
×

 

 

চুল ও শরীরের অন্যান্য পশমের মাসায়েল

coSam ৪২


চুল ও শরীরের অন্যান্য পশমের মাসায়েল

* সমস্ত মাথায় কানের মধ্য পর্যন্ত বা কানের লতি পর্যন্ত বা কাধ পর্যন্ত চুল রাখা ( অর্থাৎ, বাবরি রাখা ) এবং হজ্জ ও উমরার সময় সমস্ত মাথা মুণ্ডিয়ে ফেলা সুন্নাত। সব স্থানে সমান করে হেঁটে ফেলা জায়েয। বাবরি রাখলে তার যত্ন নেয়া কর্তব্য।

* মাথার কিছু অংশ কামানো আর কিছু অংশে চুল রাখা নাজায়েয। রোগ ব্যাধির কারণে হলেও জায়েয নয়। মুণ্ডাতে হলে সমস্ত মাথায় চুল মুণ্ডিয়ে ফেলবে।

* মাথায় টিকি রাখা বা কোন দরগায় মান্নত মেনে জন্মচুল রাখা নাজায়েয।

* মহিলাদের ন্যায় পুরুষের চুল রেখে খোপা বাধা বা বেণী বাধা জায়েয নয়।

* মাথা না মুণ্ডিয়ে শুধু গর্দানের পশম মুণ্ডানো জায়েয, তবে উত্তম নয়।

* মহিলাদের মাথা মুণ্ডানো বা চুল ছাঁটা হারাম। হাদীছ শরীফে এরূপ মহিলাদের প্রতি লা'নত এসেছে। 

* ভাল দেখানোর জন্য পাকা চুল উঠিয়ে ফেলা নাজায়েয। অবশ্য জেহাদের ময়দানে কাফেরদের অরে ভীতি সঞ্চারের জন্য এরূপ করা জায়েয আছে।

* দাড়িতে কলপ / খেযাব লাগানোর যা মাসায়েল, চুলের কলপ /খেযাব লাগানোর মাসআলাও অনুরূপ। দেখুন ৪৭৬ পৃষ্ঠা।

* নাভির নীচের পশম পুরুষের জন্য কামিয়ে ফেলা উত্তম। কোন রকম লোম নাশকের দ্বারা উপড়ে ফেলাও জায়েয আছে। মেয়েদের জন্য উপড়ে ফেলাই সুন্নাতের মোয়াফেক।

* নাভির নীচের পশম কামানোর সময় নাভির দিক থেকে শুরু করা নিয়ম। অন্ডকোষ, তার নীচে ও মলদ্বারে পশম থাকলে সবই কামিয়ে ফেলবে।

* নাকের মধ্যের পশম না উপড়িয়ে কাঁচির দ্বারা কাটা উত্তম।

* বগলের পশম উপড়ে ফেলাই উত্তম, তবে কামানোও জায়েয।

* কানের মধ্যে পশম থাকলে তাও কেটে ফেলবে।

* বুক ও পিঠের পশম কামানো জায়েয আছে তবে ভাল নয়। 

* উপরে উল্লেখিত স্থানসমূহ ব্যতীত শরীরের অন্যান্য স্থানের পশম যেমন পায়ের নলা , রান ও হাত ইত্যাদির পশম রাখা এবং কাটা উভয়ই দোরস্ত ।

* বগলের পশম, নাভির নীচের পশম, গোপ ইত্যাদি প্রত্যেক সপ্তাহে একবার পরিষ্কার করা মোস্তাহাব। শুক্রবার জুমুআর নামাযের আগেই এসব থেকে পাক সাফ হয়ে মসজিদে যাওয়া উত্তম। দু সপ্তাহে একবার করলেও জায়েয। একেবারে শেষ সীমা চল্লিশ দিন। এ সব থেকে পাক সাফ না হওয়া অবস্থায় চল্লিশ দিন অতিবাহিত হয়ে গেলে গোনাহ হবে।

* জানাবাতের অবস্থায় অর্থাৎ, যখন গোসল ফরয হয়, তখন চুল বা এসব পশম কাটা ছাঁটা মাকরূহ।

* বিনা অপারগতায় অন্যের দ্বারা বগলের পশম সাফ করানো ভাল নয়।

* ভ্রু যদি বিশৃংখল থাকে তাও কিছু কিছু কেটে - ছেঁটে সমান করে দেয়া দুরস্ত আছে। তবে মহিলাগণ বর্তমানে যেভাবে ভ্রু তুলে একেবারে সরু করে রাখে, এটা আল্লাহর দেয়া গঠনে এক ধরনের বিকৃতি। এ থেকে বিরত থাকাই জরূরী।

* কাটা চুল মটির নীচে দাফন করে দেয়া উত্তম। কোন ভাল জায়গায় ফেলে দেয়াও দুরস্ত আছে ,কিন্তু নাপাক ও খাবার স্থানে ফেলা চাই না।

* চুলের কলপ /খেযাব , চুলে তেল লাগানো , চিরুনি করা , মহিলাদের জন্য আলগা চুলের খোপা লাগানো ইত্যাদি বিষয়ে জানার জন্য দেখুন ৪৭৩-৪৭৬ পৃষ্ঠা।

সূত্রঃ আহকামে যিন্দেগী

পরবর্তী গল্প
সুন্নাত এ'তেকাফ (রমযানের শেষ দশকের এ'তেকাফ) এর মাসায়েল ও শর্ত সমূহ

পূর্ববর্তী গল্প
খতনার আহকাম

ক্যাটেগরী