চাদরের মালিকানা | আমার কথা
×

 

 

চাদরের মালিকানা

coSam ৩৭৬


সে অনেক দিন আগের কথা। কোন এক দেশে ছিলেন এক ন্যায়বিচারক বাদশাহ। তিনি স্বীয় রাজ্য শাসন করতেন অত্যন্ত ন্যায়-নীতির মাধ্যমে। যার দরুণ তার রাজ্যে কোন রকম অশান্তি ছিল না। তবে তার রাজ্য কোন রকম অশান্তি ছিল না। তবে তাঁর বুদ্ধিতে ছিল কিছুটা ঘাটতি। একবার তাঁর রাজ্যে ঘটল এক অবাক কান্ড। আর তা হলো দুই ব্যক্তি দুটি চাদর নিয়ে ঝগড়া করছে। যার একটি লাল আর অন্যটি সবুজ। সবুজ চাদরটি নতুন থাকায় তারা উভয়ে সেটিকে নিজের বলে দাবী করছে।

এমতাবস্থায় উভয়ে সিদ্ধান্তে পৌঁছার জন্য সেই ন্যায়বিচারকে রাজার দরবারে বিচার প্রার্থনা করলো। যখন বাদশাহ তাদের ১ম ব্যক্তিকে বললেন- তোমার চাদরের কিছু আলামত বর্ণনা কর, তখন সে বলল- আমার চাদরটি নতুন, তাই তাতে কোন ছেঁড়া বা গোড়ার দাগ নেই। অতঃপর ২য় ব্যক্তিকে চাদরের আলামত জিজ্ঞাসা করা হলে সেও অনুরূপই উত্তর দিল।

এবার বাদশাহ তো পড়লেন মহাবিপাকে। তিনি ভাবতে লাগলেন- হায়! আমি এক ন্যায়বিচারক বাদশাহ, আর আমার রাজ্যেই বিচার প্রার্থীদের একজন অন্যায়ভাবে ঠকবে। এ যে হতে-ই পারে না।

এমন সময় বাদশাহর হঠাৎ মনে পড়ে গেল সেই বুদ্ধিমান নাসির গাজীর কথা। বাদশাহ তৎক্ষণাৎ ডেকে সংবাদ পাঠালেন নাসির গাজীকে কাছে। ততক্ষণে গাজী সাহেব উপস্থিত।

গাজী সাহেবকে দেখেই বাদশাহ অত্যানন্দে মেতে উঠলেন এবং বলতে লাগলেন- আসুন গাজী সাহেব, বসুন। আমি এক বিচারকের রায় নিয়ে বেজায় দ্বিধা-দ্বন্দ্বে ভূগছি, আপনার বুদ্ধিমত্তাই কেবল দিতে পারবে সেই বিচারকের সমাধান।

অতঃপর গাজী সাহেবের নিকট উক্ত বিচারপ্রার্থীর সমস্যা ব্যক্ত করা হলে তিনি একটি চিরুনী আনার জন্য নির্দেশ দিলেন। চিরুনী আনা হলে, গাজী সাহেব প্রথম ব্যক্তির মাথা আচড়ালেন। তারপর অন্য ব্যক্তির মাথা আচড়ালেন। এতে দেখা গেল যথাক্রমে লাল ও সবুজ পশম বেরিয়ে আসল। তখন গাজী সাহেব প্রথম ব্যক্তিকে লাল চাদর ও অপর ব্যক্তিকে সবুজ চাদর দিয়ে দিলেন।

ন্যায়-বিচারক বাদশাহ নাসির গাজীর এই নিখুঁত বিচারককান্ড প্রত্যক্ষ করে অত্যন্ত খুশি হয়ে তাকে অনেক উপহার দিলেন।  

সূত্রঃ মুসলমানের হাসি

পরবর্তী গল্প
পরিখা খনন

পূর্ববর্তী গল্প
বোকার সন্ধানে

ক্যাটেগরী