ঘোড়ার গল্প

যারা আল্লাহর নির্দেশনা মেনে চলার মধ্যে কারচুপি করে তারা দুনিয়ার জীবনে চাকুরীর ক্ষেত্রেও মালিকের নির্দেশ মানতে কারচুপি করে থাকে। আল্লাহ তায়ালা এদের বিবেক রহিত করে দিয়েছেন। হাজারবার বুঝালেও এদের বিবেক স্বাভাবিক হবে না। তারা হলো সে লোকটির মত যে এক জমিদারের চাকর ছিল।

চাকরটি সব কাজেই ভূল করতো। বারবার ধমকানোর পরও তার কোন পরিবর্তন দেখা গেলো না। অবশেষে সে একদিন জমিদারকে বললো, আসলে আমার জানা থাকে না যে আমার দায়িত্বে কি কি কাজ আছে। আমার জন্যে নির্ধারিত কাজের একটি তালিকা তৈরী করে দেওয়া হোক।

জমিদার তাই করলেন। কাজের একটি তালিকা তৈরী করে তার হাতে দিয়ে বললেন, এ সকল কাজ তোমার কাছে আমি চাই।

অন্যান্য কাজের সাথে তালিকার মধ্যে একথাও লিখে ছিল যে যখনই আমি ঘোড়ায় চড়ে সফরে বের হবো তখন তোমাকে ঘোড়ার সাথে যেতে হবে।

একদিন জমিদার ঘোড়ায় চড়ে সফরে রওয়ানা হলেন। চাকরটিও সাথে সাথে চলতে লাগলো। হঠাত জমিদারের মূল্যবান চাদরটি মাটিতে পড়ে গেল। চাকর তার কাজের তালিকাটি বের করে দেখলো। তালিকার কোথাও একথা লিখা ছিল না যদি ঘোড়া থেকে কোন জিনিস পড়ে যায় তবে তা উঠিয়ে নিতে হবে। কাজেই চাদরটি সে উঠলো না।

অতঃপর গন্তব্য স্থলে পৌঁছে জমিদার দেখলেন তার চাদর নেই। চাকরকে জিজ্ঞাসা করলেন আমার চাদর দেখছি না, কি ব্যাপার?

চাকর বললো, হুযুর চাদরটা অমুক জায়গায় ঘোড়া থেকে পড়ে গেছে।

জমিদার তাকে ধমক দিয়ে বললেন, চাদর উঠাওনি কেন?

চাকর কাজের তালিকাটি বের করে জমিদারের সামনে ধরে বললো, এখানে কোথাও একথা লিখা নেই যে যা- কিছু ঘোড়া থেকে পড়ে যাবে তা কুড়িয়ে নিতে হবে। তাই আমি উঠাইনি।

জমিদার তালিকাটি নিয়ে সেখানে একথাও লিখে দিলেন যে যদি কোন জিনিস ঘোড়া থেকে পড়ে যায় তবে তা উঠিয়ে নিতে হবে।

আরেক দিন জমিদার ঘোড়ায় সওয়ার হয়ে কোথাও যাচ্ছেন। চাকরও পিছনে পিছনে চলছে। সফর শেষ হওয়ার পর চাকর বিরাট একটা পোটলা জমিদারের সামনে হাজির করলো।

জমিদার জিজ্ঞেস করলেন, কি আছে এর মধ্যে?

চাকর বললো, আপনার হুকুম মত কাজ করেছি হুযুর।

জমিদার পোটলা খুলে তো অবাক। পোটলা ভর্তি গোড়ার লাদি। তিনি জিজ্ঞেস করলেন, এগুলো কেন?

চাকর সে তালিকাটি জমিদারের সামনে খুলে ধরলো। বললো, দেখুন এর মধ্যে লিখা আছে ঘোড়া থেকে যা- কিছু পড়বে উঠিয়ে নিতে হবে।

অবশেষে লোকটি চাকুরী হারালো। যারা মালিকের হুকুম মানতে কারপন্য করে তাদের অবস্থা এইরূপ হয়। আল্লাহর নির্দেশেরও সঠিকভাবে গ্রহন করতে হবে। কোনরূপ টাল-বাহানা তিনি বরদাশত করেন না।

(আল – এফাযাতুল য্যাওমিয়যাহ; খন্ড -১, পৃষ্ঠা -১৪৭)

আরো পড়তে পারেন

দুঃখিত, কপি করবেন না।