খতীবের সাথে সংশ্লিষ্ট কয়েকটি মাসায়েল | আমার কথা
×

 

 

খতীবের সাথে সংশ্লিষ্ট কয়েকটি মাসায়েল

coSam ২১


খতীবের সাথে সংশ্লিষ্ট কয়েকটি মাসায়েলঃ
* খতীবের উযূ গােসলের হাজত থেকে পবিত্র হয়ে নেয়া সুন্নাত।
* খতীব মিম্বরে উঠে কিছুক্ষণ বসবেন, তারপর দাঁড়িয়ে খুতবা দিবেন। এটাই সুন্নাত।
* উপস্থিত মুসল্লীদের দিকে মুখ করে খুতবা দেয়া সুন্নাত। খুতবার সময় ডানে বামে সীনা ঘুরিয়ে রুখ করা নিষিদ্ধ, তবে শুধু ডানে বামে নজর করা যায়। আর তারগীব-তারহীবের বিষয়বস্তুর প্রেক্ষিতে আওয়াজ ও আন্দাজের মধ্যে পরিবর্তন জায়েয বরং সুন্নাত।
* দাঁড়িয়ে খুতবা দেয়া সুন্নাত।  
* মিম্বরের উপর খুতবা দেয়া সুন্নাত।
* লাঠি হাতে খুতবা দেয়া সুন্নাত (গায়রে মুআক্কাদা)। মিম্বার থাকলেও এটা সুন্নাত। তবে মাঝে মধ্যে লাঠি নেয়া পরিত্যাগ করা উচিত, অন্যথায় বিদআত হয়ে যাবে।
* খুতবার বই হাতে থাকলে লাঠি বাম হাতে নেয়া উত্তম আর বই হাতে থাকলে লাঠি ডান হাতে নেয়া উত্তম।
* খতীবের জন্য মুখস্ত খুতবা দেয়া বা কিতাব কিংবা অন্য কিছু দেখে খুতবা পড়া সবটাই জায়েয।
* খতীবের জন্য দুই খুতবার মাঝখানে তিন আয়াত পড়া পরিমাণ সময় বসা সুন্নাত।
* লােকে শুনতে পারে এ পরিমাণ আওয়াজের সাথে খুতবা পড়া সুন্নাত। কাছের লােকে শুনতে পারে অন্ততঃ এতটুকু জোরে বলা জরুরী।
* খতীব খুতবার সময়েও নেক কাজের আদেশ এবং বদ কাজের নিষেধ করতে বা মাসআলার কথা বলতে পারেন বরং মুনকার (বদকাজ) দেখলে মুখেই নিষেধ করা তার উপর ফরয!
* খতীবের জন্য খুতবার পূর্বে মেহরাবের মধ্যে নামায পড়া মাকরূহ। পড়তে হলে মিম্বরের ডান দিকে পড়বে।  
* খতীবের জন্য কোন নির্দিষ্ট বিষয়ে খুতবা দেয়া জরূরী নয়।
* খুতবা এবং ইকামতের মাঝখানে প্রয়ােজনে সংক্ষিপ্ত ভাবে কোন মাসআলা বলতে পারেন।
* খতীব খুতবার পূর্বে সংক্ষিপ্ত ভাবে ওয়াজ-নছীহত করতে পারেন, এটা জায়েয বরং মােস্তাহাব, যদি মুসল্লীগণ চান।

সূত্রঃ আহকামে যিন্দেগী

 

পরবর্তী গল্প
খুতবার সময় শ্রোতাদের করণীয় আমলসমূহ

পূর্ববর্তী গল্প
খুতবার সুন্নাত ও আদবসমূহ

ক্যাটেগরী