ওলীদ ইবনে মুগীরাহকে দাওয়াত প্রদান | আমার কথা
×

 

 

ওলীদ ইবনে মুগীরাহকে দাওয়াত প্রদান

coSam ২০১


হযরত ইবনে আব্বাস (রাঃ) হইতে বর্ণিত আছে যে, ওলীদ ইবনে মুগীরাহ রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের নিকট আসিলে তিনি তাহাকে কোরআন পড়িয়া শুনাইলেন। কোরআন শুনিয়া বাহ্যিকভাবে তাহার মন একটু গলিয়া গেল। আবু জেহেল এই সংবাদ পাইয়া তাহার নিকট আসিয়া বলিল, চাচা, আপনার কওম আপনার জন্য মালদৌলত জমা করিতে ইচ্ছা করিয়াছে। সে বলিল, কেন? আবু জেহেল বলিল, আপনার দিবার জন্য। কারণ আপনি মুহাম্মদ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) এর নিকট হইতে কিছু পাইবার আশায় তাহার কাছে গিয়াছিলেন। ওলীদ বলিল, কোরাইশগণ ভালরূপেই জানে যে, আমি তাহাদের মধ্যে সর্বাধিক মালদার। আবু জেহেল বলিল, তবে আপনি তাহার সম্পর্কে এমন কোন কথা বলিয়া দিন যাহাতে আপানার কাওম বুঝিতে পারে যে, আপনি তাহাকে মানেন না।

ওলীদ বলিল, আমি কি বলিব? খোদার কসম, কবিতা, কবিতার ছন্দ, কাসীদাহ ও জ্বীনদের কবিতা সম্পর্কে তোমাদের কেহ আমার অপেক্ষা অধিক অবগত নহে। খোদার কসম, এই সকল কবিতা ইত্যাদির সহিত তাহার কালামের কোন মিল নাই। খোদার কসম, তাহার কালামের মধ্যে এক বিশেষ মাধুর্যতা ও ঔজ্জ্বল্য রহিয়াছে। উহা এমন এক বৃক্ষসাদৃশ্য, যাহার উপরের অংশ অতি ফলদায়ক এবং নীচের অংশ অত্যন্ত তরতাজা। ইহা নিশ্চিত যে, তাহার কালাম সব কালামের উপর প্রবল হইবে, উহার উপর কোন কালাম প্রবল হইতে পারিবে না এবং নিন্ম পর্যায়ের সকল কালামকে উহা চূর্ণ-বিচূর্ণ করিয়া দিবে। আবু জেহেল বলিল, আপনি যতক্ষণ তাহার বিরুদ্ধে কিছু না বলিবেন, ততক্ষণ আপনার প্রতি কওমের লোকেরা সন্তুষ্ট হইবে না। ওলীদ বলিল, তবে দাঁড়াও, আমি এই ব্যাপারে একটু চিন্তা করিয়া লই। অতঃপর সে চিন্তা করিয়া বলিল, তাহার কালাম জাদু ব্যতীত কিছুই নহে, যাহা তিনি অন্য কাহারো নিকট হইতে শুনিয়া বলিয়াছেন। ওলিদের এই উক্তির জবাবে কোরআনের এই আয়াতসমূহ নাযিল হইল অর্থঃ আমাকে এবং যাহাকে সৃষ্টি করিয়াছি একাকী ছাড়িয়া দিন।(আমি তাহার সহিত বুঝিয়া লইব।) আমি তাহাকে অনেক ধনসম্পদ দান করিয়াছি এবং মজলিসে উপস্থিত থাকার মত সন্তান দিয়াছি।

অপর এক রেওয়ায়াতে আছে, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ওলীদ ইবনে মুগীরাকে এই আয়াত পড়িয়ে শুনাইলেন-

অর্থঃ নিঃসন্দেহে আল্লাহ্‌ তায়ালা ন্যায়-নিষ্ঠা ও পরোপকার করা এবং আত্মীয়-স্বজনকে দান করার আদেশ করিতেছেন, আর তিনি অশ্লীল ও মন্দ কাজ এবং অত্যাচার করা হইতে নিষেধ করিতেছেন, আল্লাহ্‌ তায়ালা তোমাদিগকে এইজন্য নসীহত করিতেছেন যেন তোমরা উহা গ্রহণ কর। 


পরবর্তী গল্প
হযরত আবু সুফিয়ান ও তাহার স্ত্রী হিন্দা (রাঃ) কে দাওয়াত প্রদান

পূর্ববর্তী গল্প
আবু জেহেলকে দাওয়াত প্রদান

ক্যাটেগরী