ওমরের ইসলাম গ্রহণ - পর্ব ১ | আমার কথা
×

 

 

ওমরের ইসলাম গ্রহণ - পর্ব ১

coSam ১২৫


হযরত ওমর (রাঃ) ক্রোধান্বিত অবস্থায় মজলিস থেকে উন্মুক্ত তরবারী নিয়ে সাইয়্যেদুল মুরসালীন হযরত মুহাম্মাদ (সাঃ)-কে হত্যার জন্য যাত্রা করল পথে হযরত নোয়াইমের সাথে তার সাক্ষাত হয়। হযরত নোয়াইম পূর্বেই ইসলাম কবুল করেছিলেন। কিন্তু ওমরের তা অজ্ঞাত ছিল। নোয়াইম ওমরের বংশেরই একজন লোক।

তিনি হযরত ওমরের চলার গতিবিধি দেখে সঙ্কিত হলেন। তাই হযরত ওমরের গোসসা গন্তব্যস্থানে পৌঁছার আগেই ঠাণ্ডা হোক এটাই তার কাম্য ছিল। নোয়াইম বলল, প্রথমে তোমার ঘরের খবর লও। তোমার ভগ্নিপতি সাঈদ এবং তোমার ভগ্নি ফাতেমাও মুসলমান হয়েছে।

একথা শুনে ওমর আগুনে ঘি ঢেলে দেয়ার মত জ্বলে উঠল। উন্মুক্ত তরবারী নিয়ে গতি পরিবর্তন করে ভগ্নির গৃহে প্রবেশ করল। ভগ্নি তখন সূরায়ে তোয়াহা তিলাওয়াত করছিল। ওমরের আগমনের আওয়াজ পেয়ে তিলাওয়াত বন্ধ করে তা গোপন করে ফেলল।

ওমর জিজ্ঞেস করল, তোমরা কি পাঠ করছিলে? আমাকে বল। ফাতেমা বলল কিছুই না। ওমর বলল আমি শুনেছি তোমরা উভয়ে ইসলাম গ্রহণ করেছ। এ কথা বলে ওমর তার ভগ্নীপতিকে আক্রমণ করে প্রহার করল। ফাতেমা তার স্বামীকে প্রহার থেকে বাঁচানোর জন্য তার উপর উপুড় হয়ে পড়ল এবং ওমরকে প্রহার বন্ধ করার জন্য অনুরোধ করতে লাগল। কিন্তু ওমর আরও অধিক পরিমাণে প্রহার করতে লাগল এবং ভগ্নীকেও প্রহার করল। ওমরের প্রচণ্ড আঘাতে ভগ্নী ও ভগ্নীপতি উভয়ের দেহ থেকে রক্ত ধারা প্রবাহিত হল। এবার ভগ্নী ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে বলল, ওমর! আমরা ইসলাম গ্রহণ করেছি।

তুমি যত ইচ্ছা প্রহার করতে পার। কিন্তু আমরা ঈমান ছাড়তে পারবে না। আমাদের হৃদয় পটে ঈমানের আলো এত শক্তিশালী ও মজবুত হয়ে বসেছে যে, শত অত্যাচার ও আঘাত তিলমাত্র ঈমানকে স্থানচ্যুত করতে পারবে না। ভগ্নীর এ হেন তেজদীপ্ত কথা শুনে ওমরের পাষাণ হৃদয় বিগলিত হয়ে গেল।

তাদেরকে প্রহার করা বন্ধ করল। একটু পরই ভগ্নীকে বলল, তুমি যা পড়ছিলে আমাকে তা দর্শন করাও। ভগ্নী ওমরকে কোরআন দিতে অস্বীকার করল। বললেন, তুমি নাপাক আর আল্লাহর কালাম অপবিত্র লোক স্পর্শ করতে পারে না। তুমি কোরআন দর্শন করতে চাইলে পাক পবিত্র হয়ে আস।

অনন্তর ওমর যখন গোসল করে আসল তার ভগ্নী তাঁর হাতে কোরআনের অংশগুলো তুলে দিল। ওমর সূরায়ে তোয়াহার আয়াতগুলো তিলাওয়াত করে অত্যন্ত মুগ্ধ হয়ে গেল।

অনিচ্ছা সত্বেও সে বলে উঠল আশহাদু আল্লা-ইলাহা-ইল্লাল্লাহু মুহাম্মাদুর রাসূলুল্লাহ। হযরত খব্বাব ফাতেমার গৃহে লুকিয়ে ছিল। এই অবস্থা দেখে সে সামনে এসে বলল, হে ওমর! রাসূল (সাঃ) এর দোয়া আল্লাহর দরবারে তোমার শানে কবুল হয়েছে। 

ওমরের ইসলাম গ্রহণ - শেষ পর্ব পড়তে এখানে ক্লিক করুন

পরবর্তী গল্প
ওমরের ইসলাম গ্রহণ - শেষ পর্ব

পূর্ববর্তী গল্প
ওলীদ দিন মুগিরা কে দ্বীন কবুলের আহবান

ক্যাটেগরী