এনতাকিয়া শহরে তাবলীগ – পর্ব ১ | আমার কথা
×

 

 

এনতাকিয়া শহরে তাবলীগ – পর্ব ১

coSam ১২৯


পর্ব ২ পড়তে এখানে ক্লিক করুন

এনতাকিয়া শামের একটি বিখ্যাত শহর। এ শহরের অধিবাসীরা গোমরাহীতে লিপ্ত ছিল তাই তাদের হিদায়েতের জন্য হযরত ঈসা (আঃ) সেখানে লোক প্রেরণের সিদ্ধান্ত নিলেন। তিনি যাদেরকে সেখানে পাঠিয়েছিলেন তারা সকলেই হযরত ঈসা (আঃ) এর হাওয়ারী ছিলেন। তারা সংখ্যায় ছিলেন তিনজন।

তাদের নাম যথাক্রমে সাদিক, সুদুক ও শালুম। এক বর্ণনায় আছে যে, তৃতীয় জনের নাম শামউন। কোরআনে তাদেরকে রাসূল বলা হয়েছে। রাসূল আরবী শব্দ। এর অর্থ প্রেরিত। যেহেতু তারা হযরত ঈসা (আঃ) এর প্রেরিত ছিলেন তাই কোরআনে তাদেরকে রাসূল হিসাবে অভিহিত করা হয়েছে। সর্ব প্রথম সাদিক ও সুদুককে পাঠান হয়।

ওহাব বিন মোনারা হতে বর্ণিত, সে সময় এনতাকিয়া শহরবাসীরা শিরক ও কুফরে লিপ্ত ছিল। তারা স্বহস্তে গড়া মুর্তির উপাসনা তাদের মজ্জাগত ব্যাপার ছিল। শহরের শেষ সীমায় হাবীব বিন ঈসমাইল নামে এক ব্যক্তি বসবাস করত। পেশাগতভাবে সে ছিল সূত্রধর। সে হাবীব নাজ্জার নামে প্রসিদ্ধ। নাজ্জার শব্দের অর্থ সূত্রধর। হাবীব নাজ্জার কুষ্ঠ রোগী ছিল। সে তার নিজ গৃহে অবস্থান করে তাদের মনগড়া খোদার কাছে রোগারোগ্যের জন্য প্রার্থনা করছিল।

এভাবে প্রার্থনার মধ্যে তার সত্তর বছর পার হয়ে গেল। কিন্তু তার রোগ ভাল হল না। হযরত ঈসা আঃ এর প্রেরিত লোকদ্বয় এনতাকিয়া শহরে প্রবেশ করবার সময় যে দরজাতে হাবীব নাজ্জার বসবাস করত ঐ দরজা দিয়ে প্রবেশ করেছিলেন। ঘটনাচক্রে হাবীব নাজ্জারের সাথে তাদের আলাপ আলোচনা হল।

তারা হাবীবকে পূজা পরিত্যাগ করে একমাত্র আল্লাহর ইবাদত করার আহ্বান জানাল। তারা তাকে বলল যে, সে যে সকল প্রতিমার পূজা করছে এদের কোন কিছু করার ক্ষমতা নেই। এরা নিছক পদার্থ। বরং প্রকৃত ক্ষমতা আল্লাহর হাতে। তিনি সর্ব শক্তিমান। তিনি যা চান করতে পারেন। প্রকৃতপক্ষে তিনিই এবাদত পাওয়ার যোগ্য। আর তারা আল্লাহর প্রেরিত নবীর প্রতিনিধি হিসেবে এ শহরে এসেছেন যাতে শহরবাসীকে প্রতিমার উপাসনা হতে প্রত্যাবর্তন করান যায়। এবং আল্লাহ পাকের অনুগত বান্দায় পরিণত করা যায়।

তাদের কথা শুনে হাবীব নাজ্জার জিজ্ঞেস করল, আপনারা যে দাবী করছেন তার সত্যতার উপর কোন প্রামাণ আছে কি? তারা বলেন, হ্যাঁ! হাবীব বলল-আমি আজ থেকে সত্তর বছর ধরে এ রোগে কষ্ট পাচ্ছি।

পর্ব ২ পড়তে এখানে ক্লিক করুন

পরবর্তী গল্প
এনতাকিয়া শহরে তাবলীগ – পর্ব ২

পূর্ববর্তী গল্প
হযরত ঈসা (আঃ) কে আকাশে তুলে নিয়েছেন – শেষ পর্ব

ক্যাটেগরী