ইয়ামানের শাসক বাযানের ইসলাম গ্রহণ | আমার কথা
×

 

 

ইয়ামানের শাসক বাযানের ইসলাম গ্রহণ

coSam ১২৬


দূতদ্বয়ের বর্ণিত ঘটনার কয়েক দিনের মধ্যেই নতুন পারস্য সম্রাট ইয়ামানের শাসক বাযানকে পত্র মারফত জানায়। খসরুকে তাঁর অন্যায় আচরণের অপরাধে হত্যা করে আমি স্বীকৃতি আদায় করব। আর মক্কার সে ব্যক্তি সম্পর্কে আমার দ্বিতীয় নির্দেশ না পাওয়া পর্যন্ত কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন না।

এ নির্দেশ পাওয়ার পর বাযান এবং ইয়ামানের বহু অগ্নিপূজারি পরিবার ইসলাম গ্রহণ করে ধণ্য হন। যদিও বাযান তখনও পারস্য রাজ্যের অধীন ইয়ামান প্রদেশের শাসনকর্তা। বস্তুত তিনি তখন ইয়ামানের স্বাধীন শাসকে পরিণত হয়েছেন। ইসলাম গ্রহণের পরেও তিনি কিছু কাল রাজ্যপট দেখাশুনা করেন।

কিন্তু কিছু দিনের মধ্যেই একটা অতৃপ্তি অস্বস্তি তাঁকে পেয়ে বসে। তিনি রাসূলুল্লাহ (সাঃ) সান্নিধ্যে ঠাই নিতে ব্যাকুল হয়েপড়েন। সব কিছুর মায়া মহ ত্যাগ করে দ্বীন দরিদ্রের বেশে মদিনার উদ্দেশ্যে রওয়ানা হন। কিন্তু শত্রুরা তাঁকে হত্যার সুযোগ খুঁজছিল। এ সময় তাঁরা বাযানকে গোপনে হত্যা করে ফেলে। তাঁর মনের অতৃপ্ত বাসনা নিয়েই তিনি জান্নাতে চলে যান।

পরবর্তী গল্প
রোমের বাদশাহর নিকট রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এর দূত

পূর্ববর্তী গল্প
মেকইয়াসের অপরাধ

ক্যাটেগরী