ইসলাম পূর্ব যুগে আরবদের চরিত্র – পর্ব ১ | আমার কথা
×

 

 

ইসলাম পূর্ব যুগে আরবদের চরিত্র – পর্ব ১

coSam ১৩৪


সায়লে আরেমের পর ইয়ামনের অধিবাসীরা বিভিন্নদেশে ছড়িয়ে পড়ে। তাদের একটি শাখা মক্কায় বসতি স্থাপন করে। আর অপর এক শাখা মদীনায় চলে যায়। মক্কার শাখা প্রধান ছিল ইয়াবির বিন কাহতান এবং মদীনার শাখা প্রধানের নাম ইয়াছরি।

এ কারণে ইয়াবিবের নামানুসারে মক্কাকে আরব এবং ইয়াসরিবের নামানুসারে মদীনাকে ইয়াসবির বলা হত। ইয়ামনের বাসিন্দাদের দ্বারাই মক্কা মদীনা তথা আরবদেশ শিরকে নিমজ্জিত হয়ে পড়েছিল। অসংখ্য দেব-দেবীর উপসনা প্রচলিত হল তাদের নামে।

অবশ্য তারা সৃষ্টিকর্তা হিসাবে এক আল্লাহকে স্বীকার করত। জিন-ফেরেশতা এবং বহু প্রস্তর নির্মিত মূর্তির পূজা এ উদ্দেশে করত যেন তাদেরকে আল্লাহর নৈকট্য লাভ করিয়ে দেয়। পবিত্র কাবাগৃহেই ৩৬০টি দেবতার মূর্তি ছিল। এক বছরের ৩৬০ দিন। এক এক দিনে তারা এক এক মাবুদের পূজা করত।

এ ছাড়াও আরো অসংখ্য কল্পিত মাবুদের উপসনা করত। অবশ্য সল্প সংখ্যক লোক তারকারও পূজা করত। তাদের দেবতার মধ্যে লাত, উদ্দা, মানাত, হুবাল ইত্যাদি প্রসিদ্ধ এবং প্রধান দেবতা ছিল। আরবের মুশরিকরা ফেরেশতাদেরকে আল্লাহর কন্যা বলে আখ্যায়িত করত। জ্যোতিষিরা কিছু জিন হাসিল করে তাদের মাধ্যমে বহু কল্পিত মিথ্যা ভবিষ্যদ্বানী করে জনসাধারণ হতে বহু অর্থ উর্পাজন করত। মূলত এটা ছিল তাদের উপার্জানের মাধ্যম। মানুষকে ধোকা দিয়ে টাকা পয়সা লুট করাই ছিল তাদের পেশা।

গরিবীর আশঙ্কায়ও অথবা পরের নিকট হেয় প্রতিপন্ন হওয়ার ভয়ে আপন জীবন্ত কণ্যাকে দাফন করে দেয়া কিছু সংখ্যক আরবের মধ্যে প্রচলিত ছিল। মদ্যপান, জুয়া, রাহজানি, ব্যভিচার তাদের গর্বের বিষয় ছিল।

ইসলাম পূর্ব যুগে আরবদের চরিত্র – শেষ পর্ব পড়তে এখানে ক্লিক করুন

 

পরবর্তী গল্প
ইসলাম পূর্ব যুগে আরবদের চরিত্র – শেষ পর্ব

পূর্ববর্তী গল্প
জমজম কুপের পুনঃখনন

ক্যাটেগরী