ইদরীস (আঃ) এর সাথে আজরাইল (আঃ) এর বন্ধুত্ব

হযরত ইদরীস (আঃ) এর জীবনে বহু মোজেযা রয়েছে। তার একটি প্রাধান মোজেযা হল তার প্রতিটি ভবিষ্যদ্বাণী অক্ষরে অক্ষরে বাস্তবে পরিণত হত। তার অধিক ইবাদত বন্দেগীতে আনন্দিত হয়ে বিভিন্ন সময়ে ফেরেশতারা তাঁকে আকাশ ভ্রমণে নিয়ে যেতেন।

এ সম্পর্কে তার জীবনের সর্বাধিক উল্লেখযোগ্য ঘটনা হল একদিন তিনি কাজকর্ম হতে অবসর হয়ে বসে আছেন। সন্ধ্যা হয়ে গেছে এমন সময় ফেরেশতা আযরাঈল (আঃ) এক সাধারণ মানুষের আকৃতি ধারণ করে তার সম্মুখে এসে হাযির হলে তাঁকে তিনি জনৈক বিদেশী মুসাফির ভেবে যথোচিত অভ্যর্থনা জ্ঞাপন করেন।

হযরত ইদরীস (আঃ) সর্বদা সিয়াম সাধনায় রত থাকতেন এবং প্রত্যহ সন্ধার পূর্বে তার ইফতারের জন্য জান্নাত থেকে খাবার আসত। তিনি সে খাবার দিয়ে ইফতার করতেন। ইফতারের পর যা উদ্ধৃত্ত থাকত তা পুনরায়  জান্নাতে ফিরে যেত। সেদিনও জান্নাত হতে খাবার এসেছিল। তিনি তা দিয়ে যথারীতি ইফতার করে মেহমানকেও তা খেতে দিলেন। কিন্তু মুসাফিররুপী ফেরেশতা আযরাঈল (আঃ) খানা না খেয়ে সারারাত ইবাদতে কাটিয়ে দিলেন। মেহমানের এহেন আচার-আচরণে হযরত ইদরীস (আঃ) বিস্ময়বোধ করলেন।

পরদিন প্রত্যুষ হযরত ইদরীস (আঃ) মুসাফির আযরাঈলকে বলেন, হে মুসাফির! চলুন আমরা একটু ভ্রমণ করে আল্লাহ তা’আলার কদরতসমূহ অবলোকন করে আসি। মুসাফির তাতে সম্মত হলে দুজন একত্রে ভ্রমণে বের হয়ে, কিছুদূর গমনের পর হঠাৎ মুসাফির বলেন, চলুন আমরা ঐ ক্ষেত হতে কিছু ফল তুলে দুজনে আহার করি। হযরত ইদরীস (আঃ)  তাতে বেশ আশ্চর্য ও ক্ষোভ মিশ্রিত কণ্ঠে বলেন, আপনি তো ভারী আজীব মানুষ! রাতে হালাল খানা খেলেন না, অথচ এখন অপরের ক্ষেতের ফল তুলে খেতে চাচ্ছেন। অন্যের ফল না বলে গ্রহণ করা আমাদের জন্য যে সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ।

মুসাফির তার কথায় কোন জবাব না দিয়ে সামনে অগ্রসর হতে লাগলেন। কিছুদূর সামনে অগ্রসর হওয়ার পর একস্থানে কতকগুলো বকরী চরতে দেখে মুসাফির হযরত ইদরীস (আঃ) কে বললেন, চলুন ওখান থেকে একটা বকরী এনে আমরা জবাই করি।

তা বেশ মজা করে খাওয়া যাবে। হযরত ইদরীস (আঃ) বললেন, অপরের বকরী যবেহ করে খাওয়া পাপের কাজ তা কি তোমার জানা নেই? এভাবে মুসাফির তিনদিন পর্যন্ত হযরত ইদরীস (আঃ) এর সাহচর্যে থাকেন। তার আচারণাদি লক্ষ্য করে হযরত ইদরীস (আঃ) এর মনে সন্দেহ হল যে, এ ব্যক্তি নিশ্চয় মানুষ নয়। কাজেই তিনি আগন্তুককে বলেন, আল্লাহর কসম আপনি আপনার প্রকৃত  পরিচয়টা বলুন।

মেহমান বলেন, আমি কোন মানুষ নই। আমি একজন ফেরেশতা। আমার নাম মালাকুলমওত আযরাঈল।

আরো পড়তে পারেন

দুঃখিত, কপি করবেন না।