আবদুল মুত্তালিবের স্বপ্ন – পর্ব ১ | আমার কথা
×

 

 

আবদুল মুত্তালিবের স্বপ্ন – পর্ব ১

coSam ১৯১


জমজম কূপ পুনঃ খননের ব্যাপারে অধিক বিশ্বাসযোগ্য বর্ণনা হল আবদুল মুত্তালিব যখন মক্কার ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত হলেন তখন এক রাতে তিনি স্বপ্নে দেখেন এক গায়েবী আওয়াজের মাধ্যমে তাঁকে বলা হয়েছে, হে আবদুল মুত্তালিব।

তোমরা আদি পিতা ইসমাইলের জমজম কূপ পুনরুদ্ধার কর। যাকে মেজাজ বা আমর বিন হারেস নিশ্চিহ্ন করে দিয়েছিল। আবদুল মুত্তালিব এই স্বপ্ন দেখে হঠাৎ জাগ্রত হয়ে যান এবং স্বপ্নের কথা ভাবতে থাকেন। কিভাবে জমজম কূপের নিশানা পাওয়া যাবে।

এই চিন্তা মাথায় নিয়ে তিনি চতুর্দিকে ঘুরাফেরা করতে লাগলেন। হঠাৎ তাঁর অন্তরে এলহাম হল যে, সাফা ও মারওয়ার যে দুইটি মূর্তি আছে তাদের মাঝামাঝি স্থানে জমজম কূপ। মূর্তি দুটির একটির নাম এছাপ আর অপরটির নাম নায়েলা, তখন আবদুল মুত্তালিবের মাত্র হারেছ নামে একটি পুত্র সন্তান ছিল। তিনি পুত্র হারেসকে সাথে নিয়ে গন্তব্য স্থলে যান। কিন্তু নিশ্চিহ্ন কূপের সন্ধান করে তা খনন করা খুব সহজ কাজ ছিল না।

তাই তিনি কুরাইশদের নিকট সাহায্য কামনা করলেন। কিন্তু তারা এ কাজকে একটি অবাস্তব ও অসম্ভব মনে করা তাঁর সহযোগিতা করতে অসম্মতি প্রকাশ করল। আবদুল মুত্তালিব তখন আল্লাহর দরবারে আবেদন করলেন, হে আমার রব! আমার জাতির লোকেরা আমাকে একাজে সহযোগিতা করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন।

তুমি আমাকে দশটি ছেলে দান করলে আমি এখন তোমার আদেশ পালনের জন্য কুরাইশদের সহযোগিতা ও সাহায্যের মুখাপেক্ষী হতাম না এবং অপরাপর যে কোণ জনহীতকার কাজ আমি নিজেই পুত্রদের নিয়ে সম্পন্ন করতাম। হে রাব্বুল আলামীন। তুমি যদি আমাকে দশটি ছেলে দান কর আমি একটি ছেলে তোমার নামে কুরবানী করে দিব।

জাতির লোকদের সহযোগিতা হতে বঞ্চিত হয়ে অবশেষে খাজা আবদুল মুত্তালিব নিজেই স্বীয় পুত্র হারেসকে নিয়ে এ কূপ খনন করতে লাগলেন। যখন দৃঢ় মনোবলে আল্লাহর উপর ভরসা করে আল্লাহর নির্দেশ পালনে ব্রতী হলেন তখন গায়েবী সাহায্য তাঁর সঙ্গী হয়ে গেল। পিতা পুত্রের যৌথ প্রচেষ্টায় কিছু মাটি খনন করার পরই ঐ সকল অস্ত্র ও স্বর্ণের হরিণী দেখতে পেলেন যা জরহাস কবীলার সর্দার মেজাজ ওতে পুতে রেখেছিল। এতেই তাঁর অন্তরে পূর্ণ আশার সঞ্চার হইল এবং অতি অল্প সময়ের মধ্যেই জম জমের পানি সবেগে উপরের দিকে উঠতে লাগল।   

আবদুল মুত্তালিবের স্বপ্ন – দ্বিতীয় পর্ব পড়তে এখানে ক্লিক করুন

 

পরবর্তী গল্প
আবদুল মুত্তালিবের স্বপ্ন – পর্ব ২

পূর্ববর্তী গল্প
ইসলাম পূর্ব যুগে আরবদের চরিত্র – শেষ পর্ব

ক্যাটেগরী